পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/৩৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


༤༤ .... কোরআন শরীফ [ প্রথম পারা في ۔۔ تی۔ یہ“ ”اقب۔ مام شمسی یا M SzSe MAA AAAA AAAA AAAA AAAAS AAAAAA T AAAA AAAA AAAASAAAAS AMee AAAA SAAAAA See eE e লইয়াছিল। এই সমস্তবিজ্ঞান জ্যোতিষ, ইতিহাস ও অন্যান্য নীতি কথাগুলি তাহারাষে ভাবে, আভেস্তার অন্তভুক্ত করিয়া লইতেছিল, তাহাতে বিছমিল্লা'র অতুবাদও যে উহাতে শামিল করিয়া লওয়া খুবই স্বাভাবিক, তাহাতে কোনও সন্দেহ নাই। পক্ষান্তরে, আমরা ইহাও দেখিতেছি যে, হজরতের সময় তাহার সমসাময়িক পার্সিক পণ্ডিতগণ আভেস্তা প্রভৃতির অতুবাদ করিতেছিলেন, এবং তাহাদিগের অতুবাদ সরকারী কোষাগারে আবদ্ধ থাকার অবস্থাতেই হজরত পরলোক গমন করেন। এই সময় পার্সিকদিগের দুৰ্ব্বোধ্য পাজেন্দ ভাষায় লিখিত তাহদের কোন ধৰ্ম্মশাস্ত্র বা তাহার কোন অংশ হজরতের হস্তগত হইয়াছিল বলিয়া শত্রুপক্ষ ঘূণাক্ষরেও সামান্ত একটা প্রমাণ উপস্থিত করিতে পারেন নাই। এ অবস্থায় হজরত পার্সিকদিগের নিকট হইতে গ্রহণ করিয়াছেন, এরূপ অন্তমান না করিয়া পার্সিকগণই হজরতের পত্র হইতে উকা গ্রহণ করিয়াছিল বলিয়া অনুমান করাই অধিক সঙ্গত। বস্তুতঃ এই প্রকার অন্তমান করার কোনই আবশ্যকতা নাই । সেল সাহেবকে আমরা জিজ্ঞাসা করি, আলেফ-বে প্রভৃতি বর্ণমালাগুলিও কি হজরত পার্সিকদিগের পুস্তক ইইতে গ্রহণ করিয়াছিলেন ? তাহার যুক্তির হিসাবে বলা যাইতে পারে যে, যে হেতু পার্সিকদিগের ধৰ্ম্ম পুস্তক সমূহে এই বর্ণমালাগুলি ব্যবহৃত হইতে দেখা যাইতেছে, সুতরাং বলিতে হইবে যে, আরবীগণ পার্সিকদিগের কোন পুস্তক হইতে তাঙ্গ চুরি করিয়া থাকিবে । জেন্দ ও পাহলভী ভাষার বর্ণমালার সমস্ত ইতিহাসকে অজ্ঞতা ও গোড়ামীর যুপকাষ্ঠে বলি দিয়া এইরূপ মন্তব্য প্রকাশ করা যেরূপ অসঙ্গত, প্রচলিত অভেস্ত প্রভৃতির সমস্ত ইতিবৃত্তকে অস্বীকার করিয়া কোবৃঅানের পদ বিশেষকে তাহার অন্তকরণ বলিয়া সিদ্ধান্ত করাও ঠিক সেইরূপ। ரி পাশ্চাত্য পণ্ডিতগণ প্রচলিত আভেস্তা প্রভৃতি পার্সিক ধৰ্ম্ম পুস্তকের ইতিবৃত্ত সম্বন্ধে বিস্তারিতরূপে আলোচনা করিয়াছেন। র্তাহারা সকলেই স্বীকার করিতেছেন যে, পাহলভী ভাষায় উহার অতুবাদ হইয়াছে ষষ্ঠ শতাব্দীতে, এবং তাহার পর পারস্ত দেশে আরব অধিকার প্রতিষ্ঠা হওয়ার পরে। মুছলমানেরা আরবী ও আধুনিক ফাসী ভাষায় উহার অন্তবাদ করেন। প্রাক-এন্ধলামিক যুগের ইতিহাস সঙ্কলন ব্যপদেশে তাবরী প্রভৃতি মুছলমান ঐতিহাসিকগণ তাহার অনেক অংশ নিজ নিজ পুস্তকে স্থান দান করিয়াছেন। ‘পঞ্চতন্ত্রের আরবী অতুবাদক এবহুল মোকাফফা (মৃত্যু ৫৮ হিজরী, ৭৭৪ খৃষ্টাব্দ) পার্সিকদিগের বহু পুস্তক পুস্তিকার মতুবাদ করিমছিলেন,—ইহা অকাট্য সত্য । ( দেখ—এডওয়াড ফণ্ডিক প্রণীত একৃতোফা, ব্রিটানিকা বিশ্বকোষ Art, Pahlavi প্রভৃতি ) ৷ এই শ্রেণীর মুছলমান অতুবাদকগণের প্রভাবেই যে, পার্সিকগণের প্রচলিত কোন কোন পুস্তকে বিছমিল্লার অতুবাদ স্থান লাভ করিয়াছে, তাহ নিঃসন্দেহে বলা যাইতে পারে"। এই জন্য পার্সিকদিগের ধৰ্ম্ম শাস্ত্রের এক ংশ মুছলমান ধৰ্ম্ম সাহিত্যের অন্তকরণে Rewayat—রেওয়াত—নামে অভিহিত হইয়া ওয়াছে। (দেখ—ব্রাউন, ব্রিটালিকা") । * *