পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/৩৯৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


లశిa কোল্পতমাল শরীফ [ দ্বিতীয় পার। S AAAAAA AAAA AAAA AAAA AAAAMAMAAA AAAA SAAAAA AAAA AAAA AAAA AAAA AAAA AAAA AAAAeeAeeAAA AAAA AAAA AAAA AAAAe MA AeAAA AAAA AAAA SAAAAAeeAeeeSeeeeeSe AAAA AAAASASASS AeeMAeAMAe ee AM ee eeA AeeAAA AAAA AAAA AAAAA এবং সেই সংশ্রবে তালাক প্রভৃতির বিধি ব্যবস্থা বর্ণিত হইয়াছিল। এদিককার আলোচনা শেষ করার পর জেহাদ সংক্রান্ত অন্যান্য প্রসঙ্গের অবতারণা এই আয়ত হইতে আরম্ভ হইতেছে । নামাজ এছলামের প্রধানতম সাধনা, ইমানের সঙ্গে নামাজের স্থান । এই ছুরায় প্রথমে এবং অন্যান্য বহুস্থানে তাই ঈমান ও নামাজকে এক সঙ্গে বর্ণনা করা হইয়াছে। আল্লার আদেশ পালন ও উদ্দেশ্য সাধনের জন্যই জেহাদ এবং সে জেহাদে শক্তি ও তেজঃ সঞ্চয় করিতে হয় একমাত্র আল্লাহ হইতে। তাই জেহাদের যোগসাধনারও প্রধান উপকরণ হইতেছে নামাজ । শান্তি বা সংগ্রামের কোন অবস্থাতেই মুছলমান নামাজ ত্যাগ করিতে পারে না, কারণ তাহা হইলে আল্লার সহিত তাহার আত্মার সম্বন্ধস্থত্র ছিন্ন হইয়া যাইবে । 0. নামাজের হেফাজত সম্বন্ধে এখানে যে দুইটী শব্দ ব্যবহার করা হইয়াছে, তাহার সম্পূর্ণ অর্থ—বাধ্য বাধকতার সহিত দৃঢ় ও স্থায়ীভাবে কোন কাজ সমাধা করিতে থাকা । স্বতরাং ১৮Lah Le b£U« পদের সম্পূর্ণ অর্থ—বাধ্যবাধকতার সহিত নিয়মিত ভাবে চিরকাল সমস্ত নামাজ সমাধা করিতে থাকিব । কখনও পড়িলাম, কখনও পড়িলাম না ; এরূপ করিলে এই আদেশকে অমান্ত করা হইবে । নামাজে বান্দ দণ্ডায়মান হয় আল্লার হুজুরে, সুতরাং সেই দরবারের অন্তরূপ অদব-লেহাজের সহিত নিজকে ভিতর বাহিরের সকল দিক দিয়া শুদ্ধ ও সংযত করিয়া রাখাই তাহার কৰ্ত্তব্য । আয়তে “মধ্য নামাজের” হেফাজত করার জন্য বিশেষ তাকিদ করা হইয়াছে। এই SDDBBBBBBS BB BBBS BBBBB BBBBB B BBBB BBBB BBBBB BBB ঈিশ্বেিছন, তাহা বাস্তবিকই দুঃখজনক। এই শব্দের তফছিরে ১৮ প্রকার মত দেখিতে ওয়া যায় (নয়নুল-আওতার ) । “আধুনিক” লেখকের আবার বোঝার উপর শাকের * যোগ করিয়৷ দিয়াছেন । এক্ষেত্রে সকলের স্মরণ রাখা উচিত যে, র্যাহার প্রেতি কোরআন নাজেল হইয়াছিল, তাহার অর্থ তিনি সকলের অপেক্ষ অৰিক বুৰিয়াছেন। এই মধ্যনামাজ অর্থে যে আছরের নামাজকেই বুঝাইতেছে, স্বয়ং হজরত রছলে করিম তাহা পুনঃ পুনঃ যথেষ্ট পরিষ্কার ভাষায় বলিয়া দিয়াছেন, সমস্ত বিশ্বস্ত হাদিছের কেতবে ঐ'সকল বিবরণ উদ্ধত হইয়াছে। একত্রে এই সকল হাদিছের জন্য ‘এবনূে-কঁছির, জোরে মনচুর, নয়নুল-আওতার প্রভৃতি দ্রষ্টব্য। আছরের নামাজ ব্যতীত উহার মত কোন অর্থগ্রহণ করা যে যুক্তির হিসাবেও অসঙ্গত, এমাম রাজী এই আয়তের তফছিয়ে তাহা প্রদর্শন করিয়াছেন । দিনের দুই অক্ত ফজর ও জোহর এবং রাতের দুই অক্ত নগরব ও এশা ইহার মধ্যবর্তী হওয়ায় আছরকে মধ্যবর্তী নামাজ বল হইছে। সময় সাধারণতঃ মানুষের বিষয় কর্থের ভিড় অত্যন্ত অধিক হয় এবং সেজন্স আছরের