পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/৪০৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


\రిEyR , কোরআন শরীফ [ fबडोइ नींद्र} SAAAAAAS AAAAA AAAA AAAA AAAA AAAA AAAA AAAA AAAA AAAAMA AMA eA Ae EeA AAAA AAASS SSAS SSAS SSAS AAAAA AAAA eeeA AAAA AAAA AAAA AAAA AAAA AAAA AAAA AAAA AAAA AAAA AAAA AAAA AAAA AAAAeeeSeSeSe eeeS S জাতীয় চরিত্র গঠনের এবং আধ্যাত্মিক জীবন লাভের সাধনাগুলির পরিচয় দেওয়া হইতেছে। জাতীয় চরিত্র গঠনের এবং আধ্যাত্মিক জীবন লাভের সাধনাগুলির পরিচয় দেওয়ার পর, ইতিহাসের নজির উদ্ধৃত করিয়া দেখান হইতেছে—সেই সাধনাকে গ্রহণ বা বর্জনের ফলে জাতিগণ কি পুরস্কার ব৷ অভিশাপের ভাগী হইয়াছে। জেহাদের সাধনাসংক্রাস্ত আদেশ উপদেশ গুলি বিশদরূপে বুৰাইয়া দেওয়ার পর, এখানেও কতকগুলি ঐতিহাসিক ঘটনার প্রতি ইঙ্গিত করিয়া জেহাদের স্বরূপ ও সার্ধকতাকে আরও পরিস্ক ট করিয়া দেখান হইতেছে । প্রথমে, ২৪৩ আয়ুতে, আরবদিগের পরিচিত এক জাতির ইতিহাসের প্রতি ইঙ্গিত করা হইতেছে—তাহারা কোন অত্যাচারীর হাতে নিহত হওয়ার ভয়ে, নিজেদের প্রাণ লইৰ স্বদেশ হইতে পলাই আসিয়াছিল। এই অংশের তাৎপৰ্য্য এই যে, যেখানে মৃত্যুবিভীৰিক আসিয়া জাতিকে গ্রাস করিতে উদ্যত হয়, ব্যক্তিগণের প্রাণ উৎসর্গ করিয়া সেখানে জাতীয় জীবনকে রক্ষা করিতে হয় । ব্যক্তিগণ আপন আপন প্রাণ লই৷ পলায়ন করিলে, জাতির হিসাবে আত্মবিনাশের সহায়তাই করা হয়। তাহার পর, কোরআন তীব্র ইঙ্গিত করিয়া বলিতেছে—অথচ তাহারা সংখ্যা শক্তিতে খুবই সম্পন্ন ছিল ! , অর্থাৎ—ব্যক্তি যখন তাহার জাতিগত কৰ্ত্তব্যকে ছোট করিয়া ও নিজের ব্যক্তিগত স্বার্থকে বড় করিয়া দেখিতে অভ্যস্ত হয়, সংখ্যাগত গুরুত্বের কোন সার্থকতাই আর তখন থাকে না। ২৫২ ব্যক্তির মরণে জাতির জীবন — 鱷 এইরূপে কাপুরুষের মানসিকতা লইয়া তাহারা যখন আত্মরক্ষার নামে আত্মবিনাশের আয়োজন করিতেছিল, সেই সন্ধিক্ষণে আল্লাহ তাহাদিগকে জাতীয় জীবনের গৃঢ় রহস্তটা স্মরণ করাই দিয়া বুলিলেল—হে বিপৰ্য্যন্ত জাতির আত্মবিশ্বত ব্যক্তিগণ ! তোমরা নকশকে বরণ করিয়া লইতে শিক্ষা কর, ব্যক্তিগণের এই মরণ-পণই জাতিকে স্থায়ী-জীবনের সকল অবদানে মহীয়ান করিয়া তোলে। অতঃপর তাহারা যখন আল্লার এই উপদেশ জানুসারে সাধনায় প্রবৃত্ত হইল, তখন আবার আল্লাহ তাহাদিগকে জীবন্তজাতিরূপে।প্রতিষ্ঠিত করিয়া দিলেন। আম্বতের শেষভাগে বলা হইতেছে—“সমস্ত মানবের প্রতিই আল্লাহ অনুগ্রহশীল।" অর্থাৎ নিরপেক্ষ ও মঙ্গলময় আল্লাহ, সকল মানুষকেই এমন শক্তি ও উপকরণ দিয়া পদ করিয়াছন যে, ইচ্ছা করিলেই তাহারা নিজেদের জাতিকে দাসত্বের সকল অভিশাপ হইতে মুক্ত করিয়া লইতে পারে। “কিন্তু অধিকাংশ লোকই कुंङखडा স্বাক্ষর ( শোকর) করে না।” আল্লাহ মানুষকে যে সকল শক্তি ও উপকরণ দিয়া সৃষ্টি করিয়াছেন, সেগুলির সদ্ব্যবহারের নামই শোর, আর সে গুলির অব্যবহার বা অপব্যবহারে কোক্ষরাধে নোমত বা আল্লার নেমতগুলি সম্বন্ধে কুতন্ত্রত করা হয় । এ শিক্ষার প্রতি SuB BBB BBBBB BBBB BBB BB BBBBB BB BB BBB BBB