পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/৪২৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২য় ছুরা, ৩৪শ রুকু ] ঘৰ্ম্মসম্বন্ধে জবরদস্তি . ఇO) i S ee AeeS AAAAAS AAAe S AAAA S এমাম এবনে জরির এই মতকেই অধিক সঙ্গত বলিয়া স্বীকার করিয়াছেন (তাবর ) । ফলতঃ এই হিসাবে আয়তের তাৎপৰ্য্য হইতেছে —আল্লার কুর্সি অর্থাৎ তাহার জ্ঞান স্বর্গ ও মৰ্ত্তকে বাপ্তি করিয়া আছে । আমাদের মতে ইহাই আয়তের সঙ্গত অর্থ। যাহারা আসন বলিয়া কুর্সি শব্দের অর্থ গ্রহণ করিয়াছেন, তাহারাও ইহাকে একটা রূপক উপমা মাত্র ১s৮ Uya বলিয়া মত প্রকাশ করিয়াছেন । এই প্রসঙ্গে তাহারা আরও বলিয়াছেন যে, trtgr crts arte at gists etچ چای از کرسی فین التحقوقة را قاعده উপবেশনকারীও কেহ নাই (বয়জাভী)। আসন-অর্থ গ্রহণ করিলেও, সঙ্কীর্ণ সীমাবদ্ধ যে কুর্সির কল্পনা আমরা করিয়া থাকি, তাহার সমর্থন আয়ত হইতে পাওয়া যায় না, বরং ইহণদ্বারা তাহার প্রতিবাদই হইয়া যাইতেছে। যে কুর্সি বা আসন সমস্ত আছমান ও সমস্ত জমিনকে ব্যাপ্ত করিয়া আছে, সাতওয়া আছমানের একট। মঞ্চের উপর তাহার স্থান হইবে কি করিয়া ? 尊 কাইয়ুম’-শদের তাৎপৰ্য্য ৮w to aai au যিনি স্বতভাবে কাঞম এবং বিশ্বসংসারের সমস্ত বস্তু যাহাদ্বারা কাএম ( বয়জাভী)। আয়তুল-কুঁসির বহু মহিমা হজরত রছুলে করিম কর্তৃক অনেক ছহি হাদিছে বর্ণিত হইয়াছে। চিন্তাশীল পাঠকগণ আয়তটর প্রতি গভীরভাবে মনোনিবেশ করিলে দেখিতে পাইবেন যে, আল্লার জাত ও ছেক্ষণত বা সত্ত্বা ' ও স্বরূপের একটা সম্পূর্ণ, সুন্দর ও নিখুৎ বর্ণনা এই আয়ুতে প্রদত্ত হইয়াছে। আল্লার এই পরিচয়কে মুছলমানের সম্মুখে উপস্থাপিত করিয়া তাহণকে শিক্ষা দেওয়া হইতেছে—তাহার মস্তক এই প্রভূর হুজুরে অবনত হইবে, এবং দুনার অন্ত কোন ব্যক্তি বা শক্তির নিকট সে মস্তক কখনও অবনত হইতে পরিবে না । মোজাহেদ মুছলমান তেজ গ্রহণ কুরিবে কোরআনের এই অন্তপম তাওহিদ শিক্ষণ হইতে । মোছলেম জাতীয় জীবনের সমস্ত শক্তির মূল উৎস হইতেছে এইখানে। তাই জেহাদ প্রসঙ্গের উপসংহারে তাহাকে আবার সেই 贛 আসল কথাটা স্মরণ করাইয়া দেওয়া হইতেছে । ৮৬৯ ধৰ্ম্ম সম্বন্ধে জবরদস্তি ঃ– ধৰ্ম্ম সম্বন্ধে জোর-জবরদস্তি নাই, অর্থাৎ করিতে নাই, করা অন্যায়। যেমন অন্যত্র বুল ছইয়াছে হজের সময় অশ্লীলতা নাই, অনাগর নাই, সংগ্রাম সংঘর্ষ নাই-অর্থাৎ করিতে নাই। কারণ এছলাম আসিয়া সত্যধৰ্ম্ম ও মিথ্যাধৰ্ম্মকে পৃথক করিয়া দিয়াছে। এ অবস্থায়, ষে ব্যক্তি আত্মার প্রেরণায় সত্যকে গ্রহণ করিতে সমর্থ হয় না, জোর করিয়া তাহার, দেহকে ধৰ্ম্ম-অনুশাসন পালনে বাধ্য করার কোনই সাৰ্ধকতা নাই। পূর্বে আল্লার নামে জেহাদ করার অনেক উপদেশ ধারাবাহিকরূপে বর্ণিত হইয়াছে। ইহাতে কোন কোন বাহদশী লোকের মনে হয় ত ধারণা হইতে পারিত যে, তরবারীর বলে অন্তকাবলীকে এছলাম & X