পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/৪২৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২য় ছুর, ৩৪শ রুকু ] আল্লাই মোমেনগণের অভিভাবক ৪০৩ SASeeMA AA TT E SAS SSAS SSAS SSAS SSAS S S AAAAAeeeS eAA S SA SAS AAAAAS AAAAA AAAA EA Se eSeeSAAA ee E eeS SS SSASAS SS SAAAA E ES S SSAS SSAS SSAS SSAS SSAS ۹ہےنا؟ اتنا' ۔ بہت এই শ্রেণীর সব তাগুৎকে অমান্ত করা। আল্লাহকে গ্রহণ করার পূৰ্ব্বে গম্বরুল্লাহকে নিজের মন ও মস্তিষ্কের সকল কোণ হইতে সম্পূর্ণভাবে দূর করিয়া দিতে হইবে। তাহার পর তাহার দ্বিতীয় কৰ্ত্তব্য আল্লাহকে গ্রহণ করা, কোআনের শিক্ষা অনুসারে তাহার জাত ও ছেফাতে সম্পূর্ণভাবে মোমেন হওয়া। যে ব্যক্তি এইরূপে মালেকের সহিত আত্মার যোগস্থত্র স্থাপন করিয়া লইতে পারে, তাহার আর কোন ভাবনা নাই। কারণ এই রজ্জ, বা যোগস্থত্র এত দৃঢ় যে, তাহা ছিন্ন বা ভগ্ন হওয়ার কোন সম্ভাবনা নাই । যে কোন ব্যক্তি বা বস্তু মানুষকে ন্যায়ু ও সত্য হইতে বারিত করিয়া রাখে, আল্লার আদেশ পালনে পরায়ুখ করিয়া দেয়, তাহই তাগৃৎ । যে কোন ব্যক্তি বা বস্তু মাহুবকে আল্লার আদেশ নিষেধের বিপরীত, কোন অন্যায় বা অসত্যকে গ্রহণ করিতে প্ররোচিত করিয়া তোলে, তাহাই তাহার তাগৃৎ । এই তাগুৎ যে কতরূপে, কত আকারে, কত ছলনায় আমাদের সম্মুখে আসিয়া উপস্থিত হয়, বিশেষ সতর্ক श्ईबी না চলিলে, তাহা ধরিতে পারা কঠিন। কখন তাগুৎ আসে স্বর্ণরৌপ্যের স্ত,পরূপে, কখন সে উপস্থিত হয় কারাশঙ্খল আর ' ফঁাসিকাঠের আকারে। জেহাদের জন্য প্রস্তুত হইবে যে মোছলেম, তাহাকে এই শ্রেণীর সমস্ত প্রলোভন ও বিভীষিকার সকল তাগুৎকে দলিয়া মথিয়, নিজের মোছলেমশ্বরূপের কঠোর কৰ্ত্তব্যসাধনে অগ্রসর হইতে হইবে । মদিন। আক্রমণ করিয়া এছলামধৰ্ম্ম বা । মোছলেমজাতীয়তাকে দুনয়ার পৃষ্ঠ হইতে নিশ্চিতুরূপে বিলুপ্ত করিয়া ফেলার জন্য, আরবের সমস্ত পৌত্তলিক, সমস্ত খৃষ্টান, সমস্ত এহুদী যখন সমবেতকণ্ঠে হুঙ্কার দিতেছিল-মদিনার মুষ্টিমেয় ভক্তকে সেই সময় এই সব উপদেশ দ্বারা অক্ষয় অব্যয় ও অজেয় শক্তিতে শক্তিমান করিয়া তোলা হইতেছিল । ২৭১ আল্লাই মোমেনগণের অভিভাবক — উপরের উপদেশ মতে, আল্লাহকে গ্রহণ ও তাগৃৎকে বঙ্গন কারতে পারিলেই মোমেন তাহার সমস্ত সাধনায় সিদ্ধকাম হইয়া যাইবে । তখন সিদ্ধির জন্য কোন ভাবনা আর তাহাকে করিতে হইবে না। কারণ সৰ্ব্বশক্তিমান ও সকল মঙ্গল নিদান আল্লাহ তখন যাত্রার সার্থী হইয়া, পথের আলো হইয়া, নিকটবন্ধু'অভিভাবক হইয় তাহাকে পথ দেখাইয়া । লইয়া যান । এই সাহিত্য ও সাহায্য কিরূপে লাভ করা যায়, চুরা ফাতেহার তফছিরে তাহার মাভাৰ দেওয়ার চেষ্টা পাইয়াছি। তাগৃতের বান্দাগণ হইতেছে অন্ধকারের উপাসক, चनडा ও অন্যায়কে অবলম্বন করার ফলে ক্রমশই তাহারা নিবিঢ়তম অন্ধকারে আচ্ছন্ন হইয়। 疊 পড়িতে থাকে। তাহার পর আলোকের সহিত অন্ধকারের মোকাবেলা যখন হইবে, তখন, অন্ধকারকে নিজেনিজেই বিনষ্ট হইয়া যাইতে হইবে । কারণ আলোকের অর্থই হইতেছে —অন্ধকারের বিনাশ !