পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/৪২৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


動

  • 囑 聰 কোরতমান ੋੜ੍ਹੇ কৈ | هو8ob
  • . سمي "مير _ سمبے F . ، گپ ہو جائے ملے حمل البته ایی و یا حتی احتی تبر مہیہ ہی مہم مہ حصحہ

Q আর কি হইতে পারে ? এই ঘোষণার ফলে সে সময়ের রাজা যে হজরত এবরাহিমের প্রতি ক্রুদ্ধ হইবে, আদালতে হাজির করিয়া তাহার নিকট কৈফিয়ত তলব করিবে, ইহাতে আর বিচিত্র কি আছে? রাজা হজরত এবরাহিমের সহিত বিতণ্ডা করিয়াছিল এই সময়, এবং হজরত এবরাহিম এই সময়ই তাহাকে বুঝাইয়া দিতে চাহিয়াছিলেন যে, র্তাহার স্বজাতীয়দিগের প্রতি অত্যাচার উৎপীড়ন আর অধিকদিন সম্ভবপর হইবে না— কোনের রাজত্ব আবার তাহাদের হইবে, এ সুসংবাদ তিনি আল্লার নিকট হইতে প্রাপ্ত হইয়াছেন । কিন্তু রাজা তখন হজরত এবরাহিমের কথার কোন গুরুত্ব উপলব্ধি করিতে পারিল না, বিক্ষিপ্ত অৰ্দ্ধ মুত এবং পরজাতির শাসনযন্ত্রে নিষ্পেষিত তাহারা আবার দেশের রাজা হইবে । [ তৃতীয় পারা த جیسی ২৭৩ জাতির জীবন-মরণ নিদান — শক্তিমদমত্ত অদূরদর্শী রাজীর এই শ্রেণীর তাচ্ছীল্যের উত্তরে হজরত এবরাহিম বলিলেন-আমার প্রভু যে আল্লাহ, তিনিইত হইতেছেন–জীবন মরণের একমাত্র মালেক, মৃতজাতির জীবন এবং জীবন্তজাতির মৃত্যু তাহারাই নির্দেশক্রমে সংঘটিত হইয়া থাকে। সেই সৰ্ব্বশক্তিমান প্রভুর ইচ্ছায় আমার জাতি নবজীবনের অনন্ত প্রেরণায় উদ্বুদ্ধ হইয়া .উঠিবে। অবোধ রাজা হজরত এবরাহিমের উক্তির প্রকৃত তাৎপৰ্য্য যথাভাবে বুঝিবার চেষ্টা না করিয়া, হঠকারিতার সহিত বলিয়া উঠিল—আমি হইতেছি দেশের রাজা-নরপতি, অধীনজাতি সমূহের জীবন মরণ আমারই ইচ্ছার উপর নির্ভর করে। অতএব যদি স্বজাতির মঙ্গল চাও, তাহাদিগকে আমার অতুগত আজ্ঞাবহ হইয়া থাকিতে বল। এই উপায়েই তাহারা মুক্তির পথে চলিতে চলিতে যথা সময় নিজেদের ইষ্টলাভ করিতে পরিবে। আর আমার অধীনস্থ কোন জাতি যদি আমাকে অমান্য করিয়া বিদ্রোহী হইয়া স্বদেশের স্বাধীনতা প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করে, তাহা হইলে প্রবল প্রতাপান্বিত নরপতি আমি, তাহাদিগকে একেবারে ধ্বংস করিয়া ফেলিব। রাজার এই হঠোক্তির উত্তরে হজরত এবরাহিম নিজের প্রথম যুক্তির উপসংহার হিসাবে বলিলেন–রব লআলামীনের বিশ্বরাজ্য র্তাহার নির্ধারিত নিয়মের অধীন। সেই নিয়মের অনুশাসনে এরাজ্যের সকল বস্তুরই একটা জীবন মরণ ধারা আছে, উদয় অস্তের পৰ্য্যায় আছে। এবং সে জীবন মরণ বা উদয় আস্তের কতকগুলি কারণ s উপাদান আছে, প্রত্যেকের একটা নিয়মও সময় নিৰ্দ্ধারিত আছে। সে কারণও উপাদানগুলি সঞ্চিত । হইলে এবং সেই নিয়ম সম্পন্ন ও সেই সময় সমাগত হইলে পর, কোন জাতির জীবন ব। , ধরণকে চাপিয়া রাখার কাহারও সাধ্য নাই। ইহাই আল্লার নির্ধারিত প্রাকৃতিক বিধান , এবং ইহা অমোঘ, অলঙ্ঘ্য । রাজন ! এই বিধানের প্রতি লক্ষ্য করিলে অমন হঠোক্তি প্রকাশ করা তোমার পক্ষে সম্ভবপর হইত না। স্থৰ্য্যের উপাসক তুমি, সুতরাং তাহার