পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/৪৪৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২৮৭ শয়তানী অর্থনীতি – ফাহ শা-শব্দ সাধারণতঃ অশ্লীল কাজ কথার জন্য ব্যবহার হয় বটে, কিন্তু অতিশয় কৃপণতার স্বভাবকেও আরবী সাহিত্যে ফাহশ বলা হইয়া থাকে। অর্থের মধ্য দিয়া শয়তান দুই প্রকার অনর্থ ঘটাইয়া থাকে। প্রাসঙ্গিকতার হিসাবে তাহার মধ্যকার একটার উল্লেখ এই আয়তে করা হইয়াছে। কোন সৎকর্শ্বে অর্থব্যয় করার সময় মানুষ মৰ্ম্মপীড়া ভোগ করিতে থাকে। তাহার মনে হয়, এইরূপে অর্থব্যয় করিলে আমি দরিদ্র হইয়া যাইব । অতএব কৃপণতা অবলম্বন করিয়া অর্থ সঞ্চয় করিতে থাকাই । বুদ্ধিমানের কাজ। এই ভাবের উদ্বোধক যে হীন প্রবৃত্তি, তাহাই হইতেছে মানুষের সৰ্ব্বনাশকারী শয়তান। ইহার সম্বন্ধে অন্যত্র বলা হইয়াছে— ان النفس لامارة بالسوه “নিশ্চয় প্রবৃত্তিই মন্দ কাৰ্য্যের প্রধান উদ্বোধক ( ১২—৫৩) ।” ফলতঃ এইরূপে যথাস্থানে অর্থের সদ্ব্যবহার করিতে নিষেধ করিয়া ব্যক্তিগণের মধ্যবৰ্ত্তিতায় শয়তান জাতীয়জীবনে নান অনর্থের স্বষ্টি করিয়া থাকে। আল্লাহ বলিয়া দিতেছেন—মানবজীবনের কার্য্যকলাপের, জন্য তোমাদের বে অর্থব্যয়, তাহাতে তোমরা দরিদ্র হইয়া যাইবে না। বরং অর্থ উপাৰ্জ্জনের - সময় ধনিকের জীবন সাধারণতঃ যে সব অনাচার দ্বারা অভিশপ্ত হইয়া থাকে, উপজ্জিত অর্থের কতকাংশ জনসাধারণের মধ্যে বিতরণ করিয়া দিলে, সেই সব অনাচারের কথঞ্চিত । প্রতিকণর হইয়া যাইবে, ধনী ও দরিদ্র শান্তির সহিত সামাজিক জীবন যাপন করিয়া যাইতে পরিবে। অধিকন্তু যে পরিমাণ অর্থ এই সব কৰ্ত্তব্য পালনে ব্যয় করা হইবে, তাহানঃ হইয়া যাইবে না। বরং আল্লাহ দা তাকে তাহ অপেক্ষা অধিক দান করিবেন। পূৰ্ব্ব রুকু’র প্রথম আয়ুতে উপমা দিয়া এই কথাই বুঝান হইয়াছে, ২ ৭২ অtয়তের শেষভাগেও ইহার ' স্পষ্ট বর্ণনা আছে। এইরূপে ব্যক্তিগত ও জাতীয় ধনের মধ্যকার’সম্বন্ধের, তথা অর্থনৈতিক হিসাবে জাতির এবং জাতির সহিত ব্যক্তিগণের জীবন মরণ রহস্তের প্রতি এই আয়তে | স্পষ্ট ইঙ্গিত করা হইতেছে । শয়তানের আর একটী অর্থনৈতিক অনর্থের কথা ছুর। বানিএছরাইলে বলা হইয়াছে —স্বজনগণকে এবং দুস্থ দরিদ্রদিগকে তাহীদের প্রাপ্য বুৰিয়। দিও, আর অপব্যয় করিয়া উড়াইয়া দিও না,— 願 " - - ارن المباذریری کانرا اخران الشیاطیری নিশ্চয় অপব্যয়ীরা হইতেছে শয়তানের ভাই (২৭ )।” মদ, জুয়া, ব্যভিচার প্রভৃতি যে সব উপকরণকে উপলক্ষ করিয়া শয়তান মাহুষকে অপব্যয় করিতে উদ্বুদ্ধ করিয়া থাকে, প্রথমতঃ তাহার দ্বারা মানুষের নীতি ও ধৰ্ম্মভাবের চরম অপচয় ঘটিয়া যায়। তাহার পর অপব্যনে” অপরিহার্য্য ফল হইতেছে দারিদ্র্য । এই দারিদ্র্য কেবল মানুষের “গুণরাশি নাশ”ই, নহে বরং যুগপৎভাবে ছনার সকল দোষের আকর এবং সকল পাপের জনকও ইহাই। ৰল।