পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/৪৬৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২য় ছুরা, ৩৮শ রুকু"] Aee eeeS eee eeeSAAA AH See HeS AAAAAS AAAAA AAAA SAeeS AASAASAAAS ബ یا به ع সুদ ও ছাদক 嚇 3:RG 疇 بی بی ع نقیبی بریتانیایی است بین ۳ ۹ “দারুল-হরবে” মুছলমানকে সে সব শরিয়ৎ-বিধি পালন করতে বাধ্য করবে কে ? এবং এই জন্যই বলে পরাধীন দেশে ধৰ্ম্ম সম্পূর্ণরূপে রক্ষা পায় না।” লেখক মোছলেম-শাসিত দেশ সম্বন্ধে যাহা বলিয়াছেন, তাহা সম্পূর্ণ সত্য। বিদেশী ৰিধৰ্ম্মী রাজার শাসনাধীনে মুছলমানগণ যে রীতিমত জাকাত ফেৎরা প্রভৃতি দেয় না, ইহাও ঠিক—এবং শাসনদণ্ডের ভয় না থাকিলে কেবল উপদেশের দ্বারা সকলকে কোন বিধিব্যবস্থা নিয়মিতভাবে পালন করিয়া চলিতে সৰ্ব্বদা প্রস্তুত করিয়া রাখাও যে কাৰ্য্যতঃ অসম্ভব, তাহাও আমরা স্বীকার করি। কিন্তু বিদেশী শাসনের অধীনে বর্তমান অবস্থাতেও, ‘সম্পূর্ণরূপে না হইলেও, চেষ্টা করিলে বায়তুল মাল-প্রথাকে আমরা যথেষ্ট পরিমাণে সফল : করিয়া লইতে পারি। ইহা কোন অভূতপূৰ্ব্ব ব্যাপারের অভিনব কল্পনাও নহে। এই বাংলা দেশে দীর্ঘ এক শতাব্দী ধরিয়া আহলে-হাদিছু সম্প্রদায় ইহাকে সম্পূর্ণভাবে সাধক করিয়া দেখাইয়াছেন। বর্তমানে তাহদের জমাতের তনজিম—কতকটা প্রচলিত হওয়ার ফলে এবং কতকটা মৌলবী ছাহেবদিগের স্বার্থপরতার কল্যাণে—অপেক্ষাকৃত শিথিল হইয়া পড়িলেও, এই বায়তুল মালের বরকতে র্তাহানের জমাআতহুক্ত লক্ষ লক্ষ মুছলমান আজও• মুদখোর মহাজনদিগের করাল কবল হইতে সম্পূর্ণ মুক্ত হইয়া আছে। আমাদের কক্ষ, নেতা ও আলেমগণ আন্তরিকভাবে চেষ্টা করিলে, অন্ত জমাতের মধ্যেও বায়তুল মাল. প্রতিষ্ঠিত করা যাইতে পারে। একদিকে ধর্মের, অন্যদিকে তাহাদের ব্যক্তিগত স্বার্থের মধ্য দিয়া মুছলমান জনসাধারণকে ইহার জন্ত উদ্বুদ্ধ করিয়া তোলা, কষ্টসাধ্য হইলেও জনা হইবে না। এজন্য উপদেশ ও আদশ উভয়েরই দরকার, এবং তাহার জন্য দরকার কতকগুলি— সমাজ হিতকামী কৰ্ম্মীর সত্যকার দরদের—একটু ত্যাগ ও শ্রম স্বীকারে । $o আমাদের দেশ বিদেশী ও বিধৰ্ম্মী রাজ্যদ্বারা শাসিত, ইহা ঠিক । কিন্তু ੇ বা বিধৰ্ম্মী রাজশাসনের অধীনে আছি বলিয়া, বায়তুল মাল বা বিবাহ তালাক প্রভৃতি শরিস্বতেরঅন্যান্ত বিধি বিধান সম্বন্ধে নিজেদের আবশ্বক মত সন্তোষজনক ব্যবস্থাও যে আমরা খাসকজাতির দ্বারা করাইয়া লইতে পারি না, একথা স্বীকার করা সঙ্গত হইবে না। গু৯ান ইউরোপের দ্বারা শাসিত বহু মোছলেম অধু্যাযত দেশে এই উদ্দেশ্যে এখনও “মহকমা-শরী” প্রতিষ্ঠিত আছে। কএক বৎসরের আন্দোলনের ফলে, সিলোন বা লঙ্কাদ্বীপের মুছলমানগণ, শাসনসংস্কারের সঙ্গে সঙ্গে এই প্রকার স্বতন্ত্র মহকমী বা বিচার বিভাগ প্রতিষ্ঠা করার অধিকার বৃটিশ রাজেরই নিকট হইতে সম্প্রতি আদায় করিয়া লইয়াছেন । সংহতিবদ্ধভাবে দৃঢ়তার সহিত চেষ্টা করিলে আমরাও ইংরাজের নিকট হইতে ঐ প্রকার অক্ষার আলাঃ করিয়া লইতে পারি। তাহা হইলে বায়ুতুল মাল-প্রতিষ্ঠার স্বযোগ লাভের সঙ্গে সঙ্গে, বিবাহ, তালাক, ওয়াক্ফ প্রভৃতি সম্বন্ধে আমাদের গুরুতর অভাবগুলিরও স্থায়ী প্রতিকার হইয়া যাইতে পরিবে । o