পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/৪৮০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


aజe * * ८व्यञांद्रष्टप्रांच्म =*ईौब= [ झूठीक श्रृंद्र) ৩১৬ রচুলগণের মধ্যে প্রভেদ নাই – ২৫৩ আয়তের টীকার এসম্বন্ধে বিস্তারিত আলোচনা করা হইয়াছে। ৩১৭ গতির চরম ঃ– মৃলে ‘মছির’ শব্দ ব্যবহৃত হইয়াছে। উহার ধাতুগত অর্থ—এক অবস্থা হইতে অন্য অবস্থায় অন্তরিত হওয়া এবং এইরূপে চরম গম্যস্থানে উপনীত হওয়া। জলধারাগুলি অবশেষে যে স্থানে গিয়া সমবেত হয়, তাহাকে মছির’ বলা হয় (রাগেব, কামুছ)। মাহজের জীবন ধারারও শেষ গম্য হইতেছেন সেই অল্পাহ। মাকুব আল্লার বাণীগুলি কেবল শ্রবণ করিয়াই ক্ষান্ত হইবে না, বরং তাহার জীবনধারার গতিপথ সৰ্ব্বতঃভাবে নিয়ন্ত্রিত হইবে সেই বাণীর নির্দেশ অনুসারে । কারণ মামুষের সমস্ত গতির চরম লক্ষ্য হইতেছেন— সেই বাণীর প্রকাশক আল্লাহ। তিনিই যাত্রার সার্থী ও যাত্রাপথের আলোক। তাহার বাণীকে অমান্ত করিলে সেই আলোককেই অস্বীকার করা হয়, যাত্রাপথকে দুর্গম করিয়া (ढ्७ग्व' इंच । 靜 ৩১৮ মামুষের কৰ্ম্মফল ভtহারই अजिल्लङ – এই আয়তে প্রথমে বলা হইতেছে যে, আল্লাহ মানুষকে তাহার সাধাণতীত কোন কর্তব্যপালনের আদেশ প্রদান করেন না। তাহার পরই বলা হইতেছে—সে পুরষ্কার লাভ করিবে নিজেরই আজ্জিত সৎকর্মের জন্য, এবং পক্ষান্তরে সে দওভোগও করিবে নিজেরই অতুি দুষ্কর্থের ফলে। সাধারণ বিশ্বাস অনুসারে, কে কি পাপ বা পুণ্য কাৰ্য্য সম্পাদন করিবে,মানব জন্মের বহু সহস্ৰ বৎসর পূৰ্ব্বে আল্লাহতাআলা স্বয়ং তাহ নিৰ্দ্ধারণ করিয়া দিয়াছেন, এই নিৰ্দ্ধারণের নামই র্তাহীদের পরিভাষায় তকৃদির ৷ তকৃদির আল্লার অলঙ্ঘ্য আদেশ, সুতরাং তাহার অন্যথা করা মাহুষের অসাধ্য। অতএব পৌত্তলিক প্রতিমা পূজা করিতেছে, ব্যভিচারী পরস্ত্রী হরণ করিতেছে, গুপ্তঘাতক নরহত্যা করিতেছে—আল্লারই এই অলঙ্ঘ্য আদেশে বাধ্য হইয়া, ইহার অন্যথা করার একবিন্দু শক্তিও মানুষের নাই। অথচ এই সকল কুকৰ্ম্মের জন্য আল্লাহ আবার এই হতভাগা মাষ্ট্রষগুলির প্রতি কঠোরতর নরক দণ্ডের ব্যবস্থা করিতেছেন । পুণ্যকৰ্ম্ম ও তাহার পুরস্কার সম্বন্ধেও এই কথা । আলোচ্য আয়তে অতিশয় স্পষ্ট ভাষায় এই ধারণার প্রতিবাদ করা হইতেছে। তুকদির সংক্রান্ত প্রচলিত ধারণার উপর বিশ্বাস করিতে হইলে, স্বতই প্রতিপন্ন হইয়া বাইবে ঘেঁ, আল্লাহতাআলা একদিকে মানুষকে পাপাচার করিতে বাধা করিয়া এবং অন্যদিকে তাহাকে সেই পাপ হইতে নিবৃত্ত থাকার আদেশ দিয়া, তাহাকে অসাধ্য সাধনেরই হুকুম দিয়াছেন। অধিকন্তু তিনি বে চরম অত্যাচারী, তাহাও সঙ্গে সঙ্কে সপ্রমাণ হইয়া বাইবে । এই ধাঋণার প্রতিবাদ করার জন্তই আয়তে বলা হইতেছে যে, আল্লাহ মানুষকে অসাধ্য সাধনের '