পাতা:কোরআন শরীফ (প্রথম খণ্ড) - মোহাম্মদ আকরম খাঁ.pdf/৫১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২য় ছুরা, ১ম রুকু ] छ्रोव्नtड 50 聽疇 -్క O এছলামের চরিটা রুকন বা স্তম্ভ—নমাজ, রোজ, হজ্জ, জাকাত। ইহার মধ্যে নমাজই সৰ্ব্ব প্রধান ; কারণ নমাজের সহিত আত্মার সম্বন্ধ অপেক্ষাকৃত অনেক অধিক। যথ শাস্ত্র টাকা বাহির করিয়া দিয়া ফেলিলে জাকত হইয়া গেল, সে জন্য বিশেষ কোন ধ্যান ধারণার দরকার হয় না। রোজ সংযমের ব্রত,—সংযম সাধনাই তাহার প্রধান লক্ষ্য। যথা শাস্ত্র সংযমের প্রতি লক্ষ্য করিয়া উপবাস করিয়া গেলে তোমার ছিয়াম' ব্রত সিদ্ধ হইয়া গেল। : হজ হইতেছে—আল্লার প্রতি আনুগত্য প্রকাশের ও বিশ্ব-ভ্রাতৃত্ব প্রতিষ্ঠার অনুষ্ঠান—একটা ক্রিয়া-কাণ্ড প্রধান বাৎসরিক যজ্ঞ । যথা শাস্ত্র সেই ক্রিয়া-কাণ্ডগুলি পালন করিয়া গেলেই ' হজ সম্পন্ন হইয়া যায়—তাহার সহিত আত্মার যোগ সাধনের আবশ্বক অধিক-সময়ই হয় না। কিন্তু ইহার সম্পূর্ণ বিপরীত 'ছালাত হইতেছে। ইহা প্রধানতঃ আত্মার অন্তষ্ঠান, পরমাত্মার সহিত আত্মার যোগসাধন। যে যোগে আল্লাহ সমস্ত স্বরূপ সহকারে বান্দার মানসচক্ষে প্রত্যক্ষ ভাবে প্রকট হইয় উঠেন, তাহার আত্মার স্তরে স্তরে সমস্ত মহিমা গরিমা সহকারে পরিস্ফুট হইয়া থাকেন, এবং যে যোগে সাধক নিজের সকল ক্রট বিছাতি ও দোষ দৈন্য যুগপৎভাবে অন্তর্ভূত হইয়া বান্দার অন্তরকে আত্মপ্লানি ও অন্ততাপে পূর্ণ করিয়া তুলে, তাহার সমত্ব দেহকে তাহার সন্নিধানে বিনত অবনমিত করিয়া ফেলে, তাহার সমস্ত প্রাণকে প্রেমমম্বের মাধুর্য্য গ্রহণে ব্যগ্র ও ব্যাকুল করিয়া তুলে—তাহারই নাম 'ছালাত । কোবৃঅান বলিতেছে — • قم الصلارة - أن الصلبوة تنهى عن الفحشاء ر المنكو - ر لذكر الله أكبر - ر الله یعلم ما تصنعوری - به ارزة عنکبریت অর্থাৎ—“নমাজকে তোমরা সুপ্রতিষ্ঠিত করিয়া রাথ । কারণ নমাজ ( মাতুষকে ) সমস্ত অশ্লীল ও সমস্ত ঘৃণিত ব্যাপার হইতে বারিত করিয়া রাখে, আর ইহা অপেক্ষণও মহত্তম (উদেহু হইতেছে নামাজে) আল্লার ধ্যান, আর তোমরা যাহা কৰিতেছ—আল্লাহ তাহজানিতেছেন।” (চুরা আনকাবুত ) ৷ Q এই আয়তে স্পষ্টতঃ বলিয়া দেওয়া হইতেছে যে, আল্লার ধ্যানই হইতেছে নমাজের প্রধানতম সাধনা। যে নমাজে এই সাধনার প্রতি উপেক্ষা করা হয় না, তাহা সাধকের জীবনকে এমন স্বৰ্গীয় ভাবে গঠিত ও নিয়ন্ত্রিত করিয়া দেয় যে, সে,স্বভাবতঃ সমস্ত অশ্লীল ও_ সমস্ত কুৎসিত ব্যাপার হইতে স্বতঃপরতঃ দূরে অবস্থান করিতে অভ্যস্ত হইয়া পড়ে । এ সমস্তের দিকে লক্ষ্য না রাখিয়া মাহৰ যে কেবল বাহ অনুষ্ঠান মাত্র পালন করে—আয়ুতের শেষ ভাগে ইহার প্রতি অসন্তোষ প্রকাশ করা হইয়াছে। হজরত রছলে করিমের বহু হাদিছ। হইতে জানা যায় যে, নমাজ যদি মানুষকে অশ্লীল ও 尊鬥 স্বণি কাজ হইতে বারিত করিয়া না রাখতে পারে, তাহা হইলে বুঝিতে ইরে যে, }ী:- – তাহাৰ নমাজই হইতেছে না।" আহমদ তানী এনে কঞ্জি"ত