পাতা:ক্রমশ ফসিলের মত একটা শব্দ.pdf/৩৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কবিতার উজ্জ্বল শরীরে ডুবে আমাদের স্বায়ুগুলো বস্তির বেড়ায় ছেড়া ময়লা ন্যাকড়ার মতো ঝুলছিলো, কবিতার মারমুখি ঝড় সেগুলো কেমন অক্লেশে ছিড়ে টুকরো টুকরো ক’রে উড়িয়ে নিয়ে যাচ্ছে। ঘুণধরা পাজরার মধ্যে পচারক্ত অন্ধকারে কেবলই দুৰ্গন্ধ ছড়াচ্ছিলো, হারকিউলিসের তৎপরতার মতো কবিদের ক্ষুধার্ত স্রোত বুকের মধ্যে এখন গজন ক’রে বয়ে যাচ্ছে । অসংখ্য উত্তেজিত শরীর কবিতার উজ্জল শরীরে কেমন শাস্ত হয়ে ডুবে গেল - যেমন রূপসীর নগ্ন শরীরের মধ্যে ডুবে যায় অসংখ্য শাস্ত উত্তেজিত পুরুষ । শব্দেরা মিছিল ক’রে দেয়ালে দেয়ালে বিক্ষোভে ফেটে পড়ছে । ঝুলন্ত ছবির মুখ থেকে উপচে পড়ে কি একটা গভীর ব্যাকুলত টপ টপ ক’রে বুকে জমছে। গরম মাংসের কুঁচোর মতো কবির কুচিয়ে ফেলা ব্যাকরণ গোগ্রাসে গিলে ফেলছে অপরিণত মাথার সমুদ্র । ঢলনামা রাক্ষসী প্রতীক চিত্রকল্পে প্রাণপণ সাতরাচ্ছে কি অসহায় আন্তরিক মাহুৰ। ভয়ঙ্কর শেলের মতো ভাবনা ফেটে ফেটে আগুন ঝরছে চারদিকে স্বরের ধোয়ায় যেন পলাশীর মন্দিরে ঢেকে যাচ্ছে পূজারিণীর আলগা আদল । রাতের জলঙ্গীর কাচাতীরে কখন যেন গাছের মতো অগণিত পদক্ষেপে শেকড় গজিয়ে গেছে। ঘুম ভেঙে বুক থেকে আকাঙ্খার নারীরা তোরের শাড়ি ছেড়ে আলগোছে জলে নেমে গেছে কখন যেন। স্টেশনে প্ল্যাটফর্মে ট্রেনে বাসে বাস্কে পথে জীবস্ত পোস্টার ; সাহেবনগরে কবি সম্মেলন । Voy