পাতা:গল্পসল্প - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১০৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সংযোজন ইদুরের ভোজ ছেলেরা বললে, ভারি অন্যায়, আমরা নতুন পণ্ডিতের কাছে কিছুতেই পড়ব না । নতুন পণ্ডিত-মশায় যিনি আসছেন তার নাম কালীকুমার তর্কালঙ্কার। ছুটির পরে ছেলেরা রেলগাড়িতে যে যার বাড়ি থেকে ফিরে আসছে ইস্কুলে। ওদের মধ্যে একজন রসিক ছেলে কালো কুমড়োর বলিদান বলে একটা ছড়া বানিয়েছে, সেইটে সকলে মিলে চীৎকার শব্দে আওড়াচ্ছে। এমন সময় আড়খোলা ইস্টেশন থেকে গাড়িতে উঠলেন একজন বুড়ো ভদ্রলোক । সঙ্গে আছে তার র্কাথায় মোড়া বিছানা। স্যাকড়া দিয়ে মুখ বন্ধ করা দু-তিনটে হাড়ি, একটা টিনের ট্রাঙ্ক, আর কিছু পুটুলি । একটা ষণ্ড-গোছের ছেলে, তাকে ডাকে সবাই বিচকুন ব’লে, সে চেচিয়ে উঠল— এখানে জায়গা হবে না বুড় ঢ়, যাও তুসরা গাড়িতে । বুড়ে বললেন, বড়ো ভিড়, কোথাও জায়গা নেই, আমি এই কোণটুকুতে থাকব, তোমাদের কোনো অসুবিধা হবে না। ব’লে ওদের বেঞ্চি ছেড়ে দিয়ে নিজে এক কোণে মেঝের উপর বিছানা পেতে বসলেন । ছেলেদের জিজ্ঞাসা করলেন, বাবা তোমরা কোথা যাচ্ছ, কী করতে । বিচকুন বলে উঠল, শ্রাদ্ধ করতে । বুড়ে জিজ্ঞাসা করলেন, কার শ্রাদ্ধ ? উত্তরে শুনলেন, কালো কুমড়ো টাটকা লঙ্কার । ছেলেগুলো সব মুর করে চেচিয়ে উঠল—