পাতা:গল্পসল্প - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৯১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


〉さ 事 尊 著 মানুষ সবার বড়ো জগতের ঘটনা মনে হ’ত মিছে না এ শাস্ত্রের রটনা । তখন এ জীবনকে পবিত্র মেনেছি যখন মানুষ বলে মানুষকে জেনেছি। ভোরবেলা জানালায় পাখিগুলো জাগালে ভাবিতাম, আছি যেন স্বগের নাগালে । মনে হ’ত, পাকা ধানে বঁাশি যেন বাজানো, মায়ের আঁচল-ভরা দান যেন সাজানে । তরী যেত নীলাকাশে সাদা পাল মেলিয়া, প্রাণে যেত অজানার ছায়াখানি ফেলিয়া । বুনো হাস নদীপারে মেলে যেত পাখা সে, উতলা ভাবনা মোর নিয়ে যেত আকাশে । নদীর শুনেছি ধ্বনি কত রাত দুপুরে, অপ্সরী যেত যেন তাল রেখে নুপুরে । পুজার বেজেছে বাঁশি ঘুম হতে উঠিতেই, পুজায় পাড়ার হাওয়া ভরে যেত ছুটিতেই। বন্ধুরা জুটিতাম কত নব বরষে, স্বধায় ভরিত প্রাণ মুহৃদের পরশে । পশ্চিমে হেনকালে পথে কাটা বিছিয়ে সভ্যতা দেখা দিল দাত তার খিচিয়ে । b-○