পাতা:গল্পস্বল্প.djvu/৫৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


( 89. ) এই সকল ধনরত্ন দেখিয়া পরীর হৃদয় আহ্বাদে স্ফীত হইয়া উঠিল। এত দুর্লভ, অপূৰ্ব্ব দ্রব্য থাকিতে ভাগ্য দেবী যে কাহাকেও সুখী করিতে পারেন না, ইহা তাহার অত্যন্ত আশ্চৰ্য্য বলিয়া মনে হইতে লাগিল। এই সকল ধন রত্ন দ্বারা পরী যে পৃথিবীর দুঃখ দূর করিতে সমর্থ হইবে তাহাতে আর তাহার সন্দেহ মাত্র রহিল না। আশাপূর্ণ হৃদয়ে সে পৃথিবীতে নামিয়া প্রথমেই একটি মাঠের ধারে একখানি ভগ্ন কুটারের প্রতি দৃষ্টিপাত করিল। দেখিল, কুটীরে একজন কৃষকপত্নী ক্ষুধিত সন্তানের দিকে চাহিয়া কাদিতেছে, আর চাষা নিকটেই ক্ষেত্রে কোদাল পাড়িতেছে। তাহার এমন সঙ্গতি নাই যে একখানি লাঙ্গলও কিনিয়া কার্যের একটু মুসার করে। তাহদের দুঃখ দেখিয়া দয়া হৃদয়ে চাষার নিকটে আসিয়া পরীতাহাকে জিজ্ঞাসা করিল—“তুমি কি চাও?" কৃষক তাহার নিকট কিঞ্চিৎ অর্থ প্রার্থনা করিল, প্রার্থনাপূর্ণ হইলে মহা মুখী হইয়া কুটীরে গমন করিল। পরী মনে মনে ভাবিল, “এইত ভাগ্য দেবী যাহা পারেন নাই, আমি তাহ পারিলাম, আমার দানে কৃষক কতদূর ধী হইয়াছে। আচ্ছা ইহার যেন ধনের অভাব ছিল, কিন্তু যাহার ধনের অভাব"; নাই সে না জানি স্টিসের কাঙ্গালা” পরী কৌতুহল পরবশ হইয়। একজন ধনীর গৃহে গিয়া দেখিল,ধনী মনেমনে মহা অমুখী। তাহার ধন আছে বটে কিন্তু মান নাই। পরী দয়া হইয়া তাহাকে মান দান করিল। মান পাই তাহাকে স্বৰী হইতে দেখিয়া পী তখন তুবিতে লাগিল—“আছ একজন ধনের কাঙ্গাল একজন মনের কাঙ্গাল, এ দুইই যাহার আছে—তাহা কি দুখ ?”