পাতা:গল্পাঞ্জলি.djvu/২৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


>b* গল্পাঞ্জলি সে রাত্রি এই অভাশা দম্পতীর যে কি ভাবে কাটিল, তাহার বর্ণনা নিম্প্রয়োজন । পরদিন প্রভাতে হেমাঙ্গিনী স্বামীকে বলিল—“দেখ, একবার ভবানীপুরে গিয়ে বিপিনবাবুর সঙ্গে লেখা করলে হয় না ?” নলিনী বলিল—“কি ফল হবে ?” “দেখ, তিনি তোমার ছেলেবেলাকার বন্ধু । তার কাছে পচিশহাজার টাকা ধার করেছ বলেই যে তিনি এমন করে আমাদের সর্বনাশ করবেন, এ ত সহজে বিশ্বাস হয় না । আমার বোধ হয়, তোমায় ভয় দেখাবার জন্যে তিনি এমন করেছেন । তুমি গিয়ে একটু বল্লে কইলেই বোধ হয় সময় আর কিছু বাড়িয়ে দিতে পারেন।” - নলিনী ওষ্ঠযুগল বক্র কবিয়া বিদ্রুপের স্বরে বলিল—“হু :-—ছেলেবেলাকার বন্ধু ! তার হল বিষয়ী লোক,—টাকাই তাদের ধ্যান, টাকাই তাদের দেবতা । ছেলেবেল*কার বন্ধু ! যখন পাঁচ বছর আগে তার কাছে টাকা ধার করতে গিয়েছিলাম, তখনই সে বন্ধুত্বের পরিচয় পেয়েছি । টাকা দেবার নাম শুনেই যেন ঘণীরোগ ধরল,—ছটফট করতে লাগল । শেষে যখন কটুকবালাব কথা বল্লাম, তখন সে স্থির হল । তুমিও যেমন, বিষয়ী লোকের আবার বন্ধুত্ব " হেমাঙ্গিনী অ’চিল গুটিতে খুটিতে কিয়ৎক্ষণ চিন্তা করিয়া শেষে বলিল—“লোকে বলে, ছেলেবেলার ভালবাসাই ভালবাসা। তুমি হয়ত তার প্রতি অবিচার করছ ।” ■ “হ্যাঃ-ভালবাসা :--ছিল বটে এককালে ভালবাসা । সে ভালবাসা, টাকার বস্তার চাপে ত্ৰাতি ডাক ছেড়ে অনেক দিন মরে গেছে।” হেমাঙ্গিনী নীরবে বসিয়া রহিল। ক্রমে তাহার চক্ষুযুগল সজল হইয়া উঠিল। ইহা লক্ষ্য করিয়া নলিনী ব্যথিত হইল। বলিল—“আচ্ছ, তুমি