পাতা:গল্প-গ্রন্থাবলী (প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়) তৃতীয় খণ্ড.djvu/১৯৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


:SషిO * গল্প-গ্রন্থাবলী যবেক শইয়া আছে। একজন বন্ধ ভূত্য পালঙ্কের ধারে বসিয়া ধীরে ধীরে রোগীর পায়ে হাত বলাইতেছে। মেমসাহেব বয়কে দেখিয়া সে ব্যক্তি সসম্প্রমে উঠিয়া দাঁড়াইল । যাবতীবয় প্রায় আধ মিনিটকাল রোগীর মুখের পানে চাহিয়া দাঁড়াইয়া রহিল। তাহার পর চাট দেখিতে চাহিল। ডাঞ্জার সাহেবের আদেশক্ৰমে ছয়ঘণ্টা অন্তর রোগীর দেহের উত্তাপ ও নাড়ীর গতি এই চাটে লিপিবদ্ধ হইতেছে। যবেতীবয় চাট দেখিতেছিল, যবকটি বলিল, “শশ্রেষা সম্বন্ধে ডাক্তার সাহেব কি—" হ্যাটধারিণী নিজ আবদ্ধ ওষ্ঠষ্গলে অঙ্গলিপথাপন করিয়া যবেককে কথা কহিতে নিষেধ করিল। তারপর অতি মদ বরে বলিল, “গোল করেন কেন ? দেখিতেছেন না, রোগী নিদ্রিত ?” তারপর সঙ্গিনীর দিকে ফিরিয়া সেইরূপ স্বরে বলিল, “ডোরা, তুমি রোগীর নিকট থাক, আমি অন্য ঘরে গিয়া বাবর সঙ্গে কথাবাত্তা কাঁহ।” যুবকের দিকে ফিরিয়া বলিল, “এস, বাবা।” गद्गुहे এ কক্ষখানি এই গৃহস্বামীর পড়িবার ঘর। সবচেয়ে ভাল চেয়ারখানি দখল করিয়া শশ্রেষাকারিণী বলিল, “ব’স বাবা বস।” ইহার মরবেীয়ানা দেখিয়া যুবকের হাসি পাইতেছিল । যাবতী বলিল, “তোমার নামটি জ্ঞানিতে পারি কি ?” যবেক বলিল, “আমার নাম অনিল চাটাডিজ ।” যুবতী বলিল, “আমার নাম মিস জেসি ব্রাউন। আমার সঙ্গে যে আসিয়াছে, তাহার নাম মিস ডোরা রয়।" অনিল জিজ্ঞাসা করিল, “উনিও কি ক্লিশচান নাকি ?” “নিশ্চয়। কামাক ট্রীটে যে নাসেসি হোম আছে, সেইখানে আমরা থাকি। ক্লিশচান না হইলে কি ডোরা সেখানে থাকতে পাইত ?”—বলিতে বলিতে জেসি তাহার হাতব্যাগ খালিয়া একটা সিগারেট কেস বাহির করিল। নিজে একটি সিগারেট ধরাইয়া কেসটি অনিলের দিকে ঠেলিয়া দিয়া বলিল, “হ্যাভ ওয়ান।" (খাও একটা) অনিল বলিল, “ধন্যবাদ। কিন্তু আমি ধুমপান করি না।” জেসি অনিলের দিকে চাহিয়া প্রযে়াগল ঈষৎ কুঞ্চিত করিয়া হাসিতে হাসিতে বলিল, “ইনডীড –হোয়াট এ গড লিটল বয়!” (বল কি! ভারি নক্ষি ছেলে ত!) অনিল বলিল, “তোমার সখী ঐ ডোরা—” জেসি বাধা দিয়া বলিল, "মিস রয়, ইফ ইউ প্লীজ !” (মিস রয় বলা উচিত ) অনিল বলিল, “হ—িমাফ করিবেন। মিস রয়ও কি সিগারেট খান নাকি ?” জেসি নিজ সিগারেটে দই তিন টান দিয়া “না”-সচক শিরশচালনা করিয়া অবজ্ঞাভরে -বলিল, “বেঙ্গালী হ্যায় ।” & অনিল মনে মনে বলিল, “আহা মরি! তুমি ষে কত খাঁটি ইংরেজ, তা তোমার গায়ের রঙেই মালম!” প্রকাশ্যে বলিল, “হাঁ, ষে কথা তোমায় ও ঘরে জিজ্ঞাসা করিতেছিলাম। শশ্রেষা কি ভাবে করিতে হইবে, ডাক্তার সাহেব কি তোমাদের জানাইয়াছেন ?” জেসি কয়েক টান সিগারেট টানিয়া বলিল, “আমাদের কাজ আমরা জানি–সে সম্পবন্ধে তোমার কোনও আশঙ্কা করিবার প্রয়োজন নাই বাবা। ডাক্তার সাহেব বলিয়াছেন, আমরা দুইজনে পালাক্লমে চব্বিশ ঘণ্টাই রোগীর নিকট থাকিব। মিস রয়ের ফীজ দৈনিক ১o, টাকা করিয়া, আমার ১৫ টাকা—আমি সিনিয়র কিনা —আমি উহার ৩ বৎসর পাবে" পাস করিয়াছিলাম।”