পাতা:গল্প-গ্রন্থাবলী (প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়) তৃতীয় খণ্ড.djvu/২১৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ミ>O গল্প-গ্রন্থাবলী “আপনার দেশে যেতে হলে কোন ইন্টিশানে গাড়ী চড়তে হয় দাদা ? শিয়ালদা না হাওড়া ?” "হাওড়া।” “ভালই হয়েছে। দেখন, হাওড়ায় আমরা ট্রেণে উঠবো না। এরা হয়ত আমাদের না দেখতে পেয়ে, হাওড়া আর শিয়ালদহে লোক পাঠাবে আমাদের ধরতে। তার চেয়ে বরং ট্যাক্সিতে আমরা চন্দননগর কি ব্যান্ডেল পয্যন্ত গিয়ে ট্রেণে উঠবো। কেমন, সেই ভাল হবে না ?", “সেই ভাল হবে।” পরদিন প্রভাতে লায়লী আসিয়া আমার কাণে কাণে বলিল, “কাল সন্ধ্যায় পঞ্জাব মেলে দেশভ্রমণে যাবার ব্যবসথা হয়েছে। কাল ভোরেই আমাদের পালানো দরকার।" বিপ্রহরে নবাব সাহেব আসিয়া পিয়ারীকে লইয়া জিনিষপত্র কিনিতে গেলেন । লায়লীকেও তাঁহারা সঙ্গে লইতে চাহিয়াছিলেন, কিন্তু শিরঃপীড়ার ছয়তা করিয়া সে গেল না। খালি বাড়ী পাইয়া আবার আমাদের পরামশের বৈঠক বসিল। লায়লী বলিল, "নবাব আজ রাত্রে এখানেই থাকবে। দুজনেই মদ খাবে, কাল বেলা ৮টা ৯টার কম ওদের ঘুম ভাঙ্গবে না। চাকর-বাকর সকলেই জানে, নবাব সাহেব রাত্রে এখানে থাকলে ওরা কখন ওঠে, তাই তারাও নিশিচন্ত হয়ে বেলা অবধি ঘমোয়। পরামশ সিথর হইল, ভোর পাঁচটায় লায়লী আসিয়া আমাকে জাগাইয়া দিবে, তামরা উভযে পদব্রজে বড় রাস্তায় গিয়া পড়িয়া সেখানে ট্যাক্সি ধরিব। বেল। তখন ৯টা হইবে, আমাদের ট্যাক্সি পরা দমে গ্র্যান্ড ট্রাঙ্ক রোড দিয়া ছটিতেছিল। কিছর দরে দেখা গেল, কয়েকখানা গোরুর গাড়ী রাস্তার মধ্যভাগ জডিয়া চলিয়াছে। সে গাড়ীগুলিকে পাশে যাইবার জন্য ট্যাক্সিচালক ক্ৰমাগত হণ দিতে লাগিল, নিজ গাড়ীর বেগও কমাইয়া দিল। গাড়ীগলা পাশে গেলও। কিন্তু আমাদের ট্যাক্সিটা গাড়ীগুলার পাশ্ববত্তী হইয়া হণ দিবামাত্র একটা গাড়ীর গর ভয় পাইয়া, ছটিয়া গাড়ীখানা আড়াআড়িভাবে রাস্তার মধ্যস্থলে লইয়া গেল! ফলে আমাদের ট্যাক্সি ভীষণ ধাক্কা খাইয়া রাস্তার পাশবপথ খালের দিকে কাৎ হইয়া পড়িল। আমি ছিটকাইয়া কিয়ন্দরে আছাড় খাইয়া পড়িবামাহ হঠাৎ আমার মুখ দিয়া বাহির হইল—বাপ ! কটে উঠিযা বসিলাম। ট্যাক্সি কাৎ হইবার পর্বেই ড্রাইভার লাফ দিয়া নামিয়া পডিয়াছিল। দেখিলাম, গাড়ীর দরজা খলিয়া, লায়লীর হাত ধরিয়া তাহাকে সে টানিয়া লাহির করিতেছে । বাহিরে আসিয়া দাঁড়াইয়া লায়লী থরথর করিয়া কাঁপিতে কাঁপিতে বসিয়া পড়িল । দই হাতে নিজ মাথা চাপিয়া ধবিল। আমি যেখানে পড়িয়ছিলাম, সেইখান হইতে চীৎকার করিয়া জিজ্ঞাসা করিলাম, “বড় লেগেছে, লায়লী ?” অন্সফট স্বরে যাহা বলিল, তাহা বুঝিতে পারলাম না। এই সময় কলিকাতার দিক হইতে আয় একখানি মোটর গাড়ী ছটিয়া আসিতেছে দেখা গেল। আমি ভাবিলাম, “এই রে! আমাদের ধরতে আসছে বোধ হয়।” কিন্তু দেখিলাম, সে আশঙ্কা অমলেক । এক সাহেব ও এক মেম সে গাড়ীর আরোহী। আমাদের অবস্থা দেখিয়া, তাহারা গাড়ী দাঁড় করাইয়া আমাদের নিকট আসিল। লায়লীর অবস্থা দেখিয়া সাহেব বলিল, “মেয়েটি মছা ঘাইতেছে—” বলিয়া পকেট হইতে ব্ল্যাণ্ড-ফ্লাক বাহির করিয়া লায়লীকে পান BBD DDDS DDDDSBD BD DB BBS DD D DD DD S DBBS কাছেও আসিল এবং হাত ধরিয়া আমাকেও তুলিল, আমাকেও ব্র্যান্ডি পান করাইয়া দিল।