পাতা:গল্প-গ্রন্থাবলী (প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়) তৃতীয় খণ্ড.djvu/৩২৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৩২o গল্প-গ্রন্থাবলী ফুলি বলিয়া ডাকিতে লাগিল। ফলি পাঁচ বৎসর হইতেই তার মা'র সহিত কলিকাতার আছে, বাঙ্গালীর মতই বাংলা বলিতে পারে, বরং হিন্দী বলিতেই সময়ে সময়ে তার আটকায়। খোকা তাহার দুধ খাইবে বলিয়া ডাক্তার সাহেব তাহার আহারের উত্তম বন্দো క్జా ! তার সনানের জন্য উত্তম সাবান ও পরিধানের উত্তম ও প্রচার শাড়ী মজ আসিল। ከ pm በ কয়েক দিন পরে পাদুী সাহেবের মেম, বিভাবতীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করিতে আসিলেন। তাঁহার আয়াকন্যা ফলটসিয়া ভাল আছে দেখিয়া খাসী হইলেন। খোকাকেও দেখিলেন, আদর করিলেন। বলিলেন, “মিসেস ভাদুড়ী, শনিলাম, ছেলেটিকে আপনি পোষ্যগ্রহণ করিতে অভিপ্রায় করিয়াছেন। ইহা ভাল কথা। ছেলেটি দেখিতেও বেশ সশ্রী। ইহার নাম কি রাখিবেন ?” বিভাবতী। ছেলে বাঁচকেই আগে, মেমসাহেব। আমাদের বাঙ্গালী প্রথা, ছ'মাস বয়সে অন্নপ্রাশন হয়, সেই সময় শিশর নামকরণ হয়। মেমসাহেব। উহার নাম রাখিবেন থিওডোর। থিওডোর অথে ঈশ্ববরের দান । আপনার সন্তান ছিল না, তাই ঈশ্ববর দয়া করিয়া আপনার কাছে উহাকে পাঠাইয়া দিয়াছেন। থিওডোর ভাদুড়ী—বেশ শনাইবে না ? বিভাবতী হাসিয়া বলিলেন, “অদ্ভূত শনাইবে । আপনি যে নাম প্রস্তাব করিলেন, তাহার বাঙ্গালা হয় ভগবৎপ্রসাদ বা নারায়ণপ্রসাদ।" মেমসাহেব। পলিস ছেলেটির পিতামাতাকে আবিস্কার করিতে চেন্টা করিতেছে, এখনও কোন সন্ধান তারা পায় নাই, ইহা আপনার স্বামীর নিকট শুনিলাম। যদি পলিস-তদন্তে প্রকাশ হয়, ইহার পিতা হিন্দ নয়, মসলমান, তবে কি নাম হইবে ? বিভাবতী। তবে ইহার নাম হইবে খোদাবক্স–খোদার বকশিস—মানে ঠিক থাকিবে। কিন্তু মেমসাহেব, আমরা বাঙ্গালী, উহার বাঙ্গালা নামই রাখিব। মেমসাহেব। দেখনে মিসেস ভাদুড়ী, আমার মনে হয়, পলিস কোনও দিন ইহার পিতামাতাকে আবিস্কার করিতে সমথ হইবে না—ইহার জাতিকুল চিরদিন রহস্যাবতই সহিয়া যাইবে। কালক্ৰমে ইহার বিবাহাদি দিতে হইবে, হিন্দু সমাজে ইহাকে চালাইবেন কি করিয়া ? আমার পরামর্শ, ইহাকে প্রভু যীশর ভূত্য করিয়া দিন—ইহাকে ব্যাপটাইজ করন। বৃহৎ একটা খীস্টান দেশীয় সমাজ রহিয়াছে, সেই সমাজে মিশিলে ইহার বিবাহাদি সম্বন্ধে কোনও গোল থাকিবে না। এমন কি, এ যদি কোনও য়ুরোপীয় কন্যাকেও বিবাহ করিতে চায়, তাহাতেও কোন বাধা হইবে না। আমার কথাটা ভাবিয়া দেখিবেন, আপনার স্বামীর সঙ্গেও পরামশা করিবেন। যদি ইহাকে পবিত্র খন্টান ধমেম’ দীক্ষিত করা আপনাদের অভিমত হয়, আমার স্বামীকে জানাইলে তিনি সকল ব্যবস্থা করিয়া দিবেন। ব্যাপটিজমের সময় থিওডোর নাম পছন্দ না করেন, বরং ইহার নাম দিবেন দেবপ্রসাদ--নারায়ণপ্রসাদ নাম চলিবে না। কারণ, উহা পৌত্তলিক নাম। বিভাবতী মেমসাহেবকে চা-পান করাইয়া বিদায় দিলেন। যাইবার সময় মেমসাহেব আবার বলিয়া গেলেন, “শিশকে যদি খাটধমে দীক্ষিত করিতে আপনাদের আপত্তি না থাকে ত আমায় জানাইবেন। বড়দিনের সময় সে ব্যবস্থা করা যাইবে।” স্বামী বাড়ী আসিলে বিভাবতী তাঁহাকে বললেন, “ওগো, পাদ্রী সাহেবের মেম যে মাঝে মাঝে কেন আসছেন, তা এত দিনে প্রকাশ হয়েছে। তাঁর মতলব কি জান ?” •ਿ ?”