পাতা:গল্প-গ্রন্থাবলী (প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়) তৃতীয় খণ্ড.djvu/৩৫৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


काछिन्न दिल्नाख्न ৩৫৯ জন্য বাদ নিতান্তই কিছ আনিতে হয়, তবে একখানি টিয়ে রঙের কাপড়, তাহার জমিটা হইবে টিয়াপাখীর গায়ের মত সবুজ, পাড় হইবে ঠোঁটের মত লাল। এক বোতল কুন্তলীন আনিও—এবার পদ্মগন্ধ আনিও ; গোলাপগন্ধ সবাসিত অনেক মাখা হইয়াছে। খান দই লেবর সাবান, এক বাক্স ভাল সোপ, দই জোড়া জবিলাঁচড়ি—সরগোলি আনিবে, মোটাগলি ভাল দেখিতে নয়; এক শিশি কুন্তলীনওয়ালাদের এসেন্স দেলখোস; সাদা কালো ছাই রঙের তিন বাণ্ডিল পশম, আর পার আ কোন ভাল দোকান হইতে একটি মাথায় পরিবার রপোর প্রজাপতি—এইগুলি আনিবে। অধিক আর কি লিখিব, আমাদের আর কি মানায় ? লোকে নিন্দা করিবে যে ! মার জন্য একগাছি আসল রদ্রাক্ষের মালা, বাবার জন্য একখানি মহানিবাণ তন্ন পন্তেক আনিবে। আর আনিবে শ্ৰীযন্ত বাব অমলেন্দকে; অধিক টাকা না থাকে বরং আর কিছ আনিবার প্রয়োজন নাই; শেষের লিখিত এই ফরমাসটি আনিলে চলিবে। কারণ ইহার দাম এক আনা মাত্র। ইতি— তোমার সরো, সরদ-রা সরি কাজির বিচার জগদ্বিখ্যাত আরব্যোপন্যাসের নায়ক বোগদাদাধিপতি হারণ আল রশীদ একদিন সিংহাসনে বসিয়া পায় মিত্র সভাসদবগকে জিজ্ঞাসা করিলেন—”কন্যা ও পত্রবধ এই দুইয়ের মধ্যে সন্ত্রীলোকেরা কাহাকে অধিক ভালবাসে ?” সভাসদগণ ভিন্ন ভিন্ন মত প্রকাশ করিতে লাগিলেন। কেহ বলিলেন, কন্যা অপেক্ষা পত্রকে সকলে অধিক ভালবাসে সতরাং পত্রবধকেও সমধিক ভালবাসিবার কথা। অন্যেরা প্রতিবাদ করিলেন, পত্রবধ পরের মেয়ে সতরাং কন্যাকেই সকলে অধিক ভালবাসিবে। কেহ বলিলেন, পত্রবধ পরের মেয়ে হইলেও ঘরে থাকে, কন্যা পরের ঘরে চলিয়া যায়, অতএব পত্রবধর প্রতিই স্নেহ গাঢ়তর হয়। অপরেরা ঠিক এই যুক্তিতেই উক্তমত খণ্ডন করিষা বলিলেন, যে সব্বদা কাছে থাকে, তাহার প্রতি ততটা সেনহোন্দ্রেক হয় না; যে দরে থাকে, সে-ই অধিক স্নেহের অধিকারিণী হয়। এইরপে বাদানবোদ কিছতেই মীমাংসার দিকে অগ্রসর হইতেছিল না। এক বন্ধ বিচক্ষণ সভাসদ এতাবৎকাল নীরবে বসিয়া ছিলেন। খালিফ তাঁহাকে বলিলেন —“মৌলবী সাহেব, আপনি কেন স্বীয় মত প্রকাশ করিতেছেন না ?” বন্ধ, খালিফের এই প্রকার উক্তিতে বিশেষ সন্মানিত হইয়া বিনয়নম বচনে কাঁহলেন—“হে ঈশ্বর-প্রেরিতে মহম্মদীয় ধমের রক্ষক, সন্ত্রীলোকেরা যে পত্রবধ অপেক্ষা কন্যাকে অধিক ভালবাসে, তাহার প্রমাণস্বরুপ আমি একটি গল্প জানি, অনুমতি হইলে নিবেদন করিতে পারি।” খালিফের অনুমতিক্রমে প্রবীণ মৌলবী এইরুপ গল্প করিতে আরম্ভ করিলেনঃ– পরোকালে এক নগরে এক বন্ধা বাস করিত। তাহার এক পত্র আর এক কন্যা ছিল। এই কন্যা ও পত্রবধাটি একই সময়ে আসন্নপ্রসবা হইলেন। পত্রেবধরে নাম ওয়াজিহন (সন্দরী) এবং কন্যাব নাম জহরণ (প্রকাশমানা) ছিল। এক রাত্রে একই সময়ে ওয়াজিহন ও জহরণ দুইজনেরই সন্তান ভূমিষ্ঠ হইল। তখনও ধাত্রী আসিয়া পৌঁছে নাই। বিধবা দেখিল পত্রবয ওয়াজিহনের পত্র সন্তান ও কন্যা জহরণের কন্যা সন্তান জমিয়াছে। ইহা বিধবাব সহ্য হইল না। সে ওয়াজিহনের পত্রকে জহরণের