পাতা:গীতরত্ন গ্রন্থঃ (১৮৭০)- রামনিধি গুপ্ত.djvu/১২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নিধুবাৰু উছার পর আখড়াই বিষয়ে যে সকল নুতন প্রণালী করেন এমত আর কেহই করিতে পারেন নাই, ইহাব কৃত প্রণালীই অদ্যপি প্রচলিত রহিষাছে । ১২১০ সালে যখন মহামাপ্ত মহারাজ রাজকৃষ্ণ বাহাদুৰ aজাখড়াই, আমোদে আমোদী হইলেন তখন শ্ৰীদাম দাস, রামঠাকুর, ও নসিবাম সেকর প্রভূতি কসেক জন সৰ্ব্বদাই aআখড়াই, সংগীতের সংগ্রাম করিত, ইহীর তীবতেই এ বিষয়ে পণ্ডিত ছিল কিন্তু সৌখিন ছিলনা পেসাদারি করিষ টাকা লইত । 拿 ১২১২ কিম্বা ১৩ অব্দে নিধুবাবুব উদ্যোগে এতন্নগবে দুইটি সংশোধিত সখের আখড়াই দলের স্থষ্টি হয, তাহার এক পক্ষে বাগবাজার ও শোভাবাজারস্থ সমুদায় ভদ্রসস্তান, এবং অর্ণব এক পক্ষে মনসাতলা অথবা পাতুরিয়াঘাট নিবালি "নীলমণি মল্লিক মহাশয় ও তাহার বন্ধুবৰ্গ ব্ৰতী হইলেন, এই উভয় দলে “বাদী, হইলে নিধুবাবু বাগবাজাবের পক্ষ হইযা গীত ও মুর প্রদান করিলেন, এবং মল্লিক বাবুর পক্ষে শ্ৰীদাম দাস এবং “কুলুইচন্দ্র সেনের পুঞ্জ এগোকুলচন্দ্র সেন প্রভূতি কয়েক জন গীত ও সুর প্রস্তুত করণার্থে প্ৰবৰ্ত্ত হইলেন, তাহাতে শ্ৰীদাম দাস প্রভৃতি ভবানী বিষয় এবং গেউড প্রস্তুত করিলেন প্রভাতি প্রস্তুত করিতে গোকুলচন্দ্র সেনেব উপর ভারার্পণ হইল, তাহাতে তিনি এই মোহাড রচনা করিলেন যথা । “এইরে অরুণ অালো কামিনী দহিতে । ,, কিন্তু ইহার চিতেন পড়েন এবং অন্তর প্রস্তুত করিতে বিলম্ব হওয়াতে নিধুবাবুকে কহিলেন খুভামহীশষ এই মোহাড়t প্রস্তুত করিয়াছি, কাল বিলম্ব হয় অতএব অনুগ্রহ কবিয়া ইহার চিতেন প্রভূতি রচনা করিয়া দিউন তাহাতে বাবু এই নিম্ন লিখিত চিত্তেম, পড়েন এবং পর চিতেন রচনা করিয়া দিলেন যথা ।