পাতা:গীতরত্ন গ্রন্থঃ (১৮৭০)- রামনিধি গুপ্ত.djvu/২৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।

[  ]

ভৈরবী ৷

তাল জলদ্‌ তেতালা ।

 নয়ন ঘরে দেখরে প্রবল বিরহানল।
জলে হুতাশন, জ্বলয়ে দ্বিগুণ, না হয় শীতল ।
ইহার উপায় বিধি, কিবা সেই প্রাণনিধি,
বোধেরে হইল ।
বাসন পূরিবে, দুঃখ দুরে যাবে, নিভিবে অনল ।। ১ ।।

 দিবা অবসান হয় কখন পাব তারে ।
নিশিতে পাইলে দেখ, নহেত সুখেরে ।।
নীর মধ্যে বাস মোর, আঁখি ভাসে নীরে ।
তাবে না হেরে অনল, জ্বলিছে অন্তরে ।। ১ ।।

 নয়ন কাতর কেন তাহারে না দেখিলে ।
চতুর্ভুজ হই বুঝি সে মুখ হেরিলে।
নয়ন আপন মতে মনেরে আনিলে ।
বিনা দরশনে দুঃখ, যায় কি করিলে ।। ১ ।।
কেমন নয়ন মোর না ভুলে ভুলালে ।
কহে অীর সুখ কিবা, সে নিধি নহিলে ।। ২ ।।

 নয়নেরে দুঃখ দিয়া মনেতে সদা উদয় ।
দরশন দিতে প্রাণ কেন হে এত নিদয় ।। ১ ।।

 আমি কি কখন তোমা বিনা সুখী ।
যে রূপ করয়ে প্রাণ যতক্ষণ নাহি দেখি ।। ১।।