পাতা:গীতরত্ন গ্রন্থঃ (১৮৭০)- রামনিধি গুপ্ত.djvu/৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


না বলে কেমনে রব বল্যে বল কি করিব । তোমা বিনে আর সেখানে কাহাব গমনাগমন । ১ { জন্মের আগমনীয় জান সে স্থান নিশ্চয় । ইথে অনুমান এই হয় প্রাণ তুমি সে কারণ ৷ ২ ৷৷ যদি তাহে থাকে ফল লয়েছ করেছ ভাল । নাহি চাহি আমি যদি প্রাণ তুমি করাহ যতন।। ৩ { তদনন্তর ১১৯৮ সালে জোড়াসাঁকে পল্লিতে দ্বিতীয়বার বিবাহ কৰিলেন সে সংসার অতি শীঘ্রই গত হইল, ইহান্তে পুনঃ২ বিবাহ করণে নিতান্তই অনিচ্ছুক হইয়াছিলেন, কিন্তু কি করেন দৈৰ নিৰ্ব্বন্ধ খণ্ডন হুইবার নহৈ নানা প্রকার অনুরোধ বশতঃ ১২০১ কিম্ব ২ হায়নে ধবরিবাট চণ্ডীতলা, গ্রামের হরিনারায়ণ লেন মহাশয়ের তৃতীয়া কস্তাকে তৃতীয় পক্ষে উদ্ধtহু করিলেন, এই সংসারে তাহার চারিটি পুত্র ও দুইটি কস্ত জন্মে তন্মধ্যে প্রথম পুস্ত্র ও কনিষ্ঠ পুস্ত্র এবং জ্যেষ্ঠ কন্যা লোকান্তরিত হইয়াছেন, এইক্ষণে জ্যেষ্ঠ পুত্র গ্ৰীজয়গোপাল গুপ্ত এবং কনিষ্ঠ ভ্রমুখময় গুপ্ত এবং ইহারদিগের কনিষ্ঠ ভগ্নী জীবিত আছেন ইহারদিগের সকলেরই দুই একটি উপযুক্ত পুত্র এবং কঙ্ক জন্মিয়াছে। গুরুচরণ কবিরাজ ও গুরুদাস কবিরাজ নিধুবাবুর এই ছুইজন ভাগিনেয় অতিশয় কৃতবিদ্য হইয়াছিলেন, বাৰু তাহারদিগকে প্রাণাধিক জ্ঞানে যথোচিত স্নেক করিতেন, ইহারা উভয়েই র্তাহার সংসারে প্রতিপালিত হইয়া যৌবনাবস্থার মায়িক দেহ পরিহাঁর করাতে তিনি অত্যন্ত কাতর হইলেন এবং তদবধি সাংসারিক সুখসম্বন্ধে এককালেই আসক্তি হীন হইলেন, কি ঐশ্বৰ্য্য কি পরিজন” কাহার প্রতি আর কিঞ্চিৎ মাত্র যত্ন করিতেন না গৃহে থাকিয়া উদাসীনের স্তাষ ব্যবহার করিতে লাগিলেন। ইনি উপকার ধর্মকে পরম ধৰ্ম্ম জ্ঞান করিয়া সাধ্যানুসারে