পাতা:গীতা-গ্রন্থাবলী (উপেন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়).djvu/১৯১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


^tూ8 উত্তর গীতা । অৰ্জুন উবাচ। ব্ৰহ্মাণ্ডব্যাপিতং ব্যোম বোমা চাবেটিতং জগৎ । অস্তবহিস্ততো ব্যোম কথং দেবো নিরঞ্জনঃ ॥ ৪৬ ৷ শ্ৰীভগবানুবাচ। আকাশো হবকাশশ্চ আকাশব্যাপিতঞ্চ যত । আকাশস্ত গুণং শব্দে নিঃশব্দং ব্ৰহ্ম উচ্যতে ॥ ৪৭ ৷ ইন্দ্রিয়াণাং নিরোধেন দেহে পশুস্তি মানবাঃ । দেহে নষ্টে কুতো বুদ্ধিবুদ্ধিনাশে কুতোইজ্ঞতা ॥ ৪৮॥ . - অৰ্জুন জিজ্ঞাসা করিলেন, হে প্রভো! আপনার বাক্য পীযুষময়, উগ কর্ণকুহরে প্রবিষ্ট হইলে পরলোকভয় বিদূরিত হইয়া থাকে। আমি যতই শ্রবণ করিতেছি, ততই আমার শ্রবণলালসা বলবতী হইতেছে ; অতএব পুনরায় জিজ্ঞাসা করিতেছি যে, আকাশ যেরূপ বিশ্বব্যাপিত, সেইরূপ এই অখিল জগৎ আকাশ দ্বারা পরিব্যাপ্ত রহিয়াছে । যদি জগতে কি বাহ, কি মধ্য সকল স্থানই আকাশ দ্বারা পরিব্যাপ্ত হইল, তাহা হইলে আকাশাতিরিক্ত পরমাত্মা কি প্রকারে কোথায় অবস্থিতি করেন ? ৪৬ ৷ বাসুদেব কহিলেন, হে পাৰ্থ । আকাশ শূন্তস্বভাব, শব্দ উহার গুণ । এখন বিবেচনা কর,যখন আকাশের গুণ শব্দ ইছল, তখন আকাশ অদৃশু বস্তু। •যেরূপ বায়ুর রূপ নাই, উহাকে দেপিতে পাওয়া যায় না, কেবল স্পর্শ দ্বারা উহার অনুভব হয়, সেইরূপ আকাশ অদৃশ্ব পদার্থ, কেবল শব্দ দ্বারা উহার অনুমান করিতে হয়। যে বস্তু শূন্য, তাহার গুণ কখনই সম্ভব হয় না। পরমাত্মা শব্দশূন্য ও সৰ্ব্বব্যাপী । এই বৃহৎ আকাশ, যাবতীয় ভূত ও ভৌতিক বস্তু সকলই সেই ব্রহ্মে প্রতিষ্ঠিত রহিয়াছে ; বস্থত: তিনি আকাশাদিসম্পন্ন নিখিল ব্ৰহ্মাণ্ড হইতে বৃহৎ, এই জন্যই তিনি ব্রহ্ম নামে পরিকীৰ্ত্তিত ॥ ৪৭ ৷ হে অৰ্জুন ! যোগীরা প্রথমতঃ ইন্দ্ৰিয়সমূহকে স্ব স্ব বিসয় কষ্টতে প্রতিনিবৰ্ত্তিত ও বশীভূত করিয়া শরীরমধ্যে স্বপ্রকাশমান পরব্রহ্মকে দর্শন করিয়া থাকেন, অনন্তর দেহ ধ্বংস হইলে তৎসহ সেই আপরোক্ষতত্ত্বজ্ঞানীর বৃদ্ধিও নাশ প্রাপ্ত হয়, বুদ্ধি বিনাশ প্রাপ্ত হইলেই অজ্ঞানও দরীভূত হইয়া যায়। এইরূপ জ্ঞানের অন্তধর্ণনই মুক্তির হেতু ॥ ৪৮