পাতা:গীতিমাল্য-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/১৩০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


৯৯

তার  অন্ত নাই গাে যে আনন্দে গড়া আমার অঙ্গ।
তার  অণু-পরমাণু পেল কত আলাের সঙ্গ॥
ও তার অন্ত নাই গাে নাই।
তারে  মােহন-মন্ত্র দিয়ে গেছে কত ফুলের গন্ধ।
তারে  দোলা দিয়ে দুলিয়ে গেছে কত ঢেউয়ের ছন্দ।
ও তার অন্ত নাই গাে নাই।
আছে  কত সুরের সােহাগ যে তার স্তরে স্তরে লগ্ন।
সে যে  কত রঙের রসধারায় কতই হল মগ্ন।
ও তার অন্ত নাই গাে নাই।
কত  শুকতারা যে স্বপ্নে তাহার রেখে গেছে স্পর্শ।
কত  বসন্ত যে ঢেলেছে তায় অকারণের হর্ষ।
ও তার অন্ত নাই গাে নাই।
সে যে  প্রাণ পেয়েছে পান ক’রে যুগ-যুগান্তরের স্তন্য।
ভুবন  কত তীর্থ-জলের ধারায় করেছে তায় ধন্য।
ও তার অন্ত নাই গাে নাই।
সে যে  সঙ্গিনী মাের আমারে সে দিয়েছে বরমাল্য।
আমি  ধন্য, সে মাের অঙ্গনে যে কত প্রদীপ জ্বালল।
ও তার অন্ত নাই গাে নাই।

৫ বৈশাখ ১৩২১

শান্তিনিকেতন

১২০