পাতা:গোবিন্দ দাসের করচা.djvu/১১৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


२७ গোবিন্দ দাসের করচা কেহ কারু নহে এই প্রমেয়ের ধারা। না হয় করিতে সিদ্ধ প্রমাণের দ্বার ॥ ঈশ্বর প্রমেয় হন তাহার প্রমাণ । মনুষ্য হৃদয় মাঝে আছে ৰিদ্যমান ॥ দূর হতে দূরে তিনি মুঢ়জনে জানে। অত্যন্ত নিকটে তেহ জ্ঞানী ইহ মানে ॥ সার তত্ত্ব কহিলাম বেদের বাখান । মূৰ্খলোকে ইহার না রাখয়ে সন্ধান ॥ এই সব সত্য তত্ত্ব জানে যেই জন । পুনঃ পুনঃ সে জনার না হয় মরণ ॥ প্রভুমুখে এহ সব শুনি তীর্থরাম। বিষয়ে আসক্তি ছাড়ি করে, হরিনাম ॥ হরি সংকীৰ্ত্তনে প্ৰভু মাতিয়া উঠিল । ক্রমে তার সঙ্গিগণ আসিয়া জুটিল । ধনিজন তীর্থরাম পড়িলা বিপাকে । ইহা বলি পাষণ্ডের কত কথা তাকে ॥ তীর্থরাম তৃণসম বিষম ছাড়িয়া । হরি বলি নাচে দুই বাহু পশারিয়া ॥ সৰ্ব্বাঙ্গে তিলক ধরে পরণে কৌপীন। ভক্তিতে করিলা তারে অতি দীন হীন ॥ এই কথা কাণে শুনি তাহার রমণী। কাদিতে কঁাদিতে ধেয়ে আইল অমনি ॥ তীর্থের চরণ ধরি কাদিতে লাগিল । তীর্থরাম তার কথা কাণে না শুনিল ॥ কমল কুমারী নাম বড়ই সুন্দরী । তার রূপে চারিদিক দিলা আল করি ॥ কমলে বলিলা তীর্থ কর ধরি করে। বিষয় সম্পত্তি সব দিলাম তোমারে ॥ নরক হইতে ত্রাণ পাইয়াছি আমি । বিষয় বৈভব সব ভৈাগ কর তুমি ॥ এই কথা কাণে শুনি কমলকুমারী । আছাড় খাইয়া পড়ে পৃথিবী উপরি । কমলের মায়াজাল দেখে তীর্থরাম । ঈষৎ হাসিয়া বলে কর হরি নাম ॥ কাদিতে কঁদিতে তবে কমলকুমারী। ফিরে গেল তীর্থ হলো পথের ভিকারী ॥ উদ্ধারিয়া তীর্থরামে গৌরাঙ্গ সুন্দর। ছাড়িলেন তবে প্রভু সিদ্ধ বটেশ্বর ॥ কত লোক কত বস্ত্ৰ আনি জুটাইল। কিন্তু এক খণ্ড প্রভু হাতে না ছুইল ॥ গোবিন্দ বলিয়া প্রভু ডাক দিয়া শেষে । চাপড় মারিলা এক মোর পৃষ্ঠ দেশে ॥ সাত দিন গোয়াইকু এই বটেশ্বরে। নন্দীশ্বরে যাই চল দর্শনের তরে ॥ এই কথা শুনি কাধে লইলাম খড়ি। চলিলাম প্ৰভু সনে বটেশ্বর ছাড়ি ॥ পথে যেতে যেতে এক বিশাল জঙ্গল । দেখিয়া আমার মন হইল বিকল ॥ দশক্রোশ ব্যাপিয়া সে জঙ্গল বিথার । উপজিল ভাবনা কেমনে হব পার ॥ অন্তর্যামী প্ৰভু মোর ঈষৎ হাসিয়া । আগে চলি গেলা মুহি থাকিমু হঠিয়া ॥ প্রভূর পেছনে মুড়ি পথ বাহি যাই । র্তাহার ইচ্ছায় কোন ভয় নাহি পাই ॥ তার মধ্যে কত জন্তু বাসা করি আছে। একটিও দেখা নাহি দিল আগু পাছে ॥ জঙ্গল পার হৈয়া মুন্ন নগরের পাশে। বৃক্ষতলে বসিলেন বিশ্রামের আশে ॥ মুল্লাবাসী দুই জন গৃহস্থ আসিয়া । আটা আনি যোগাইল যতন করিয়া ॥