পাতা:গোবিন্দ দাসের করচা.djvu/১১৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২৮ গোবিন্দ দাসের করচা বৃক্ষতলে এই যে দুঃখিনী বসে আছে। এই সব অন্ন বস্ত্র দেহ ওর কাছে ॥ দয়া দেখে লোক সব আশ্চৰ্য্য হইল। কেহ বলে বুদ্ধালাগি ভিক্ষা মাগি নিল এত বলি প্ৰভু মোর বহিবাস পরি। যাত্রা করিলেন মুখে বলি হরি হরি। ইঙ্গিত করিলা প্ৰভু মোর পানে চাই । করঙ্গ খড়ম লয়ে পিছে পিছে যাই ॥ বহুতর লোক সঙ্গে চলিতে লাগিল । তাহে প্ৰভু একবার ফিরে না চাহিল ॥ একে একে সব লোক ফিরিয়া চলিল । রামানন্দ স্বামী তার সঙ্গ না ছাড়িল ৷ বড় সদাচর হয় রামানন্দ স্বামী । গোপনেতে তার তত্ত্ব পুছিলাম আমি ॥ রামাননা বলে ভাই প্রভুরে দেখিয়া । আমার কঠিন মন গিয়াছে গলিয়া ॥ যদি প্রভু শিষ্য নাহি করেন আমায়ে । তখনি ত্যজিব প্রাণ না রব সংসারে ॥ তার পর প্রভু মোর বেঙ্কট নগরে। উপনীত হৈল গিয়া দিবা দ্বিপ্রহরে ॥ সেই খানে ছিল এক পণ্ডিত গোসাই । বেদান্তে পণ্ডিত বড় তুল্য তার নাই ॥ বিচার করিতে চাহে পণ্ডিতপ্রবর । হারিলাম বলি প্ৰভু করয়ে উত্তর ॥ তথাপি ন ছাড়ে স্বামী বিচার করিতে । বদন বিকাসি প্ৰভু লাগিলা হাসিতে ॥ অদ্বৈতবাদের কথা স্বামী যত কয়। দ্বৈতাদ্বৈত বাদ তুলি চৈতন্ত বুৰায় ॥ অবশেষে ঘোরতর বিচার বাধিল । ক্রমে ক্রমে দণ্ডিস্বামী হারি মানি নিল ॥ রামানন্দ নাম তার বড়ই পণ্ডিত। হরিনামে রামানন্দ হইলা দীক্ষিত ॥ হরিনাম সুধা কর্ণে দিলেন ঢালিয়া । পড়িল স্বামীর মনে ভক্তি উছলিয়া ॥ রামানন্দ স্বামী তবে প্রণাম করিয়া । প্রভুর আজ্ঞায় মঠে গেলেন ফিরিয়া ॥ সকল শিষ্যেরে স্বামী হরিনাম দিলা । ভক্তিরসে মন তার মাতিয়া উঠিলা ॥ তিন দিন থাকি প্রভূ বেঙ্কট নগরে। অকপটে হরিনাম দেন ঘরে ঘরে ॥ কিবা নর কিবা নারী মাতিল সবাই । সেই সঙ্গে নাচে মোর চৈতন্য গোসাই ॥ মাতিল নগর পল্পী বালক বালিকা । কত লোক আসে যায় কে করে তালিকা ৷ ভক্তি তত্ত্ব উপদেশ দেন সৰ্ব্বজনে । e - e g a e মূঢ় যত লুটায় চরণে ॥ পাবও দেখিতে প্রভু আগে দেন কোল। কোল দিয়া তারে কন হরি হরি বোল ॥ পন্থভাল নামে তথা এক দস্থ্য ছিল। এই বাক্য শুনি প্রভু তথায় চলিল । সবলোক বলে সাধু না যাহ তথায়। যদি পন্থভীল বধ করে হে তোমায় ॥ পাপাচাব পন্থভাল নাছি কোন জ্ঞান। আপনারে পেয়ে পাছে একে করে আন ॥ না শুনিলা কারো কথা চেতন্ত গোসাই ধাইল বগুলা পানে পন্থভাল ঠাই ॥ বগুলা নামেতে বনে পন্থভৗল থাকে পথিক জনেরে পেলে ফেলায় বিপাকে ॥ বাধা সাধা নাছি মানি ভরঙ্কর বনে । কৌতুক দেখিতে প্ৰভু চলিলা সেখানে ॥ করঙ্গ লইয়া আমি পেছু পেছু যাই । কিছু না বলিল মোরে চৈতন্ত গোসাই ॥ প্রভূরে পাইয়া পন্থ আতিথ্য করিল সেই খানে মহাপ্রভু ত্রিরাত্রি রহিল ॥