পাতা:গোবিন্দ দাসের করচা.djvu/১৩০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গোবিন্দ দাসের করচ অহঙ্কারে কিবা কাজ ওহে সাধু জন। বিচারে পণ্ডিত হয়ে কিবা প্রয়োজন। মরকেতে ঘর বান্ধে পাপাত্মা পণ্ডিত। এই কথা সবে বলে শাস্ত্রের লিখিত ॥ বহু শাস্ত্র জানিয়া যে হয় কামাচার। কি করিবে সেই মুখ করিয়া বিচার। অর্থ লাগি প্রবঞ্চনা করে যেই জন । নাহি বুঝে সে পাষণ্ড শাস্ত্রের বচন ॥ কামিনী কণক লাগি যার ব্যস্ত মন । বিড়ম্বনা হয় তার বেদ অধ্যয়ন ॥ মৎসর যাহার চিত্তে সদা খেলা করে। পিতৃপতি * নিজ হস্তে তার দণ্ড করে। হরিনামে গলে যায় যাহার হৃদয় । সেই ত পণ্ডিত বড় আমার নিশ্চয় ॥ হরিনাম করিতে আনন্দধারা বহে । যাহার নয়নে তারে সুপণ্ডিত কহে ॥ পড়িয়া শুনিয়া যার কৃষ্ণে নাই রুচি। সেই মুর্থ হয় ভাই সৰ্ব্বদা অশুচি ॥ শুনিয়া প্রভুর মুখে এতেক বচন । নিঃশব্দ হইয়া যোগী রহে কতক্ষণ ॥ বিরক্ত সন্ন্যাসী সব প্রভুরে বেড়িয়া । শুনিতে লাগিল বাণী অজ্ঞান হইয়া ॥ অবশেষে গোরাচাদ দুই বাহু তুলি। হরিনামে মত্ত হয়ে পড়িলেন ঢুলি । পড়িলা চৈতন্ত প্রভু আছাড় খাইয়া । পাথরের ঘায় গেল থুতনি কাটিয়া ॥ দর দর রক্তধারা পড়িতে লাগিল । যতনে পণ্ডিতবর তাহ মুছাইল ॥ পিতৃপতি-ষমরাজ । & 8S তিন দিন সেতুবন্ধে করিয়া কীৰ্ত্তন। বামে চলে মাধবীবন * করিতে দর্শন। মাধবীবনে থাকে এক মৌন ব্রতধারী। র্তাহারে দেখিতে যায় আমার ভিখারী ॥ আশ্চর্ষ্য রূপের ছটা সন্ন্যাসীর হয়। শ্বেতশৃএ ঢাকিয়াছে তাহার হৃদয় ॥ বড় বড় নখ পড়িয়াছে উলটিয়া । বসিয়া আছেন মৌনে উলাঙ্গ + হইয়া ॥ বস্ত্র দণ্ডকমণ্ডলু কিছু কাছে নাই। স্থির ভাবে হেরিলেন চৈতন্য গোসাই ॥ অতি শাস্তভাব তার মুদ্রিত নয়ন। বৃক্ষ তল গৃহ হয়, আকাশ বসন ॥ কোন বাঞ্ছা নাই তার মগ্ন তপস্তায় । জোড় হস্তে প্ৰভু মোর সম্মুখে দাড়ায় ॥ অনেক বিনয় স্তুতি চৈতন্ত করিলা । তথাপি সন্ন্যাসিবর ফিরে না চাহিলা ॥ তিন দিন পরে ভিক্ষণ আনি ফল মূল। যোগাইয়া যান যত উদাসীনকুল ৷ তিন দিন পরে সেই যোগিমহাজন। করেন আহার করি জীবন ধারণ ॥ | | i ধ্যান ভাঙ্গি যোগিবর ফিরে তাকাইলা । সেই কালে প্রভু কথা কহিতে লাগিলা ॥ কিছু নাহি বুঝে যোগী প্রভুর বচন। সংস্কৃত ভাষায় তবে করে আলাপন ॥ স্থিরভাবে শুনি বাণী যোগিমহাশয় প্রভূব সহিতে দুই চারি কথা কয় ॥

  • রামায়ণে স্বত্রীবের অধিকারভুক্ত, ষে মধুবনের । বর্ণনা অাছে ইহা তাঁহাই কিনা বিবেচ্য।

+ উলঙ্গ' স্থানে অনেক স্থলেই উলঙ্গ পাঠ দুষ্ট হয়, যথা—“উলাঙ্গ হইয়া নাচে ঘন বহে শ্বাস” ২৪ পৃঃ ।