পাতা:গোবিন্দ দাসের করচা.djvu/১৪৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


○ やり গোবিন্দ দাসের করচ এমন দয়াল প্রভু কভু দেখি নাই । কত পাপী উদ্ধারিল লেখা জোখা নাই ॥ মুরারিগণের ভক্তি দেখিয়া নয়নে । প্রভাতে যাইতে চাহে চোরানন্দী বনে গ্রাম্যলোক বলে সেথা কিবা প্রয়োজন । পাপের আকর হয় চোবানন্দী বন ॥ চোরানন্দী বনে বহু ডাকাতের বাস । সেখানে যাইতে কেন কর অভিলাষ ॥ প্রভুবলে যাব মুহি চোরানন্দী বন । চোরানন্দী দেখে সিদ্ধ হবে প্রয়োজন । গ্রাম্যলোক বলে সেথা ন যা ও সন্ন্যাসী সাধুর গমন সেথা নাহি ভালবাসি ॥ বহুচোর বহু দম্য থাকে সেই স্থানে । জীবন সংশয় হবে যাইলে সেখানে ॥ প্রভু বলে কিবা মোর লবে দম্ন গণ । এখনি সেখানে মুহি করিব গমন ॥ রাম স্বামী বলে প্ৰভু চোরানন্দী বন । কোন তীর্থ নহে তথা কিব। প্রয়োজন । যদি কোন অমঙ্গল কবে দম্যগণ । তোমার বিরহে লোক ত্যজিবে জীবন ॥ প্রভু বলে ভয় নাহি কর রাম স্বামী। হরিনামে দস্যগণে মাতাইব আমি ৷ এত বলি প্ৰভু চোরানন্দীতে চলিল । চোরানন্দী গিয়া বৃক্ষতলায় বসিল ॥ এই স্থানে আডড করি বহু দুষ্টজন । ডাকাতি করিয়া করে জীবন যাপন ॥ একজন লোক আসি কাই মাই করি । কি কহিল আমি সব বুঝিতে না পারি ॥ তার বাক্য বুলি সব প্রভূ সমজিয়া । কাই মাই করি তারে দিলেন বুঝিয়া ॥ সেই লোক ক্ষণ কাল চাহিয়া রহিল। ইতি উতি তাকাইয়া বনে প্রবেশিল ॥ নরোজী নামেতে এক মহাবলবান। অস্ত্ৰ শস্ত্র সঙ্গে করি হৈল আগুয়ান ॥ দুই চারিজন ক্রমে আসি দেখা দিলা । সন্ন্যাসী দেখিয়া সবুে প্রণাম করিলা ॥ নারোজী বলিল। o চল মোর স্থানে । আজিকার রজনীতে থাকিবে সেখানে ॥ নারোজীর কথা শুনি প্রভু তবে বলে । রাত্রি কাটাইব আজি থাকি বৃক্ষতলে । শুনিয়া প্রভুর বাক্য নারোজী শ্রবণে । ভিক্ষণ আনি দিতে বলে দুই চারি জনে নারোজার কথা শুনি ছুটিল সবাই। যোগাসনে হরিনামে বসিল নিনাই । কেহ কাষ্ঠ চিনি আনে কেহ বা ত ভুল । কেহ দুগ্ধ কেহ ঘূত কেহ ফল মূল ॥ রাশি রাশি খাদ্য আনি তারা যোগাইল । বহু খাদ্য দেখে মোর লালসা বাড়িল । বহু দেশ ভ্ৰমিলাম প্রভুর সহিতে । এত খাদ্য কোন স্থানে না পাই দেখিতে ॥ নানা দ্রব্য যোগাইয়া চারিদিক ঘেরি । দাড়াইলা নরোজীর লোক সারি সারি ॥ হরিনাম করিতে করিতে প্ৰভু মোর । সেই কালে কৃষ্ণ প্রেমে হইলা বিভোর ॥ কোথা রহে দুগ্ধ চিনি কোথায় তণ্ডুল । পদম্পর্শে ছিন্ন ভিন্ন হৈল ফল মূল ॥ দুই চারি জন বলে কেমন সন্ন্যাসী । ইচ্ছা করি নষ্ট করে খাদ্যদ্রব্য রাশি ॥ নারোজী বলিল কভু দেখি নাই হেন। সন্ন্যাসী দেখিয়া মোর প্রাণ র্কাদে কেন ॥ কত পাপ করিয়াছি কে পারে বলিতে । আজি কেন ইচ্ছা হয় কেীপীন পরিতে ॥ কিসের লাগিয়া আজি প্রাণ মোর কাদে । আমি কি দিলাম পদ সন্ন্যাসীর ফাদে ॥