পাতা:গোবিন্দ দাসের করচা.djvu/৯২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গোবিন্দ দাসের করঢা হরিধ্বনি সহ বুড়া করয়ে চীৎকার। অবধৌত সাতারিয়া করে পারা বার ॥ ৬ একে একে গঙ্গা গর্ভে সবে বীপ দিলা । সপ্তরিয়া সবে নানা কেলি আরম্ভিলা ॥ আশ্চর্য্য প্রভুর রূপ হেরিতে লাগিনু । রূপের ছটায় মুহি মোহিত হইনু ॥ স্নান করি গোরা চাদ উঠিলা ডাঙ্গায়। কুটিল কুন্তল রাশি পৃষ্ঠেতে লোটায় ॥ শুদ্ধ সুবর্ণের ন্তায় অঙ্গের বরণ। নীলপদ্ম দল সম সুদীর্ঘ নয়ন ॥ সুন্দর কপোল যুগ প্রশস্ত ললাট । সহজে চলিলে দেখায় নাটুয়ার নাট ॥ + রাম রস্তা জিনি শোভে মনোহর উরু । তুলি দিয়ে আঁকা যেন ছুটী চারু ভুরু ॥ আলতা রঞ্জিত যেন যুগল চরণ। নিরখিলে মুগ্ধ হয় মুনির নয়ন ॥ প্রেমময় তমুখানি মুখে হরিবোল। যারে পান দয়া ক'রে তারে দেন কোল ॥ হরি বলি অশ্র পাত করে মোর গোরা । পিচকারী ধারা সম বহে অশ্র ধারা ॥ চলিতে লাগিলা তবে মোর গোরা রায় । অবধৌত নিত্যানন্দ পিছু পিছু ধায় ॥ একই জেলের মুখে পরিচয় পাইয়া। একে একে সকলেরে লইছু চিনিয়া ॥ এইরূপে জলকেলি পেখিয়া নয়নে । ভাবসিন্ধু উছলি উঠিলা মোর মনে ॥ লোকে বলে শচীগৃহে ঈশ্বর আইলা । তাই দরশনে চিত্ত আকুল হইলা ॥ গৃহবিচ্ছেদের ছলা হৈল ভাগ্য ক্রমে । তাই আইলাম শীঘ্র নবদ্বীপ ধামে ॥

  • পারাবার = এপার ওপার হওয়া ।

নাট-মৃত্য । ঘাটে বসি এই লীলা হেরিকু নয়নে। কি জানি কেমন ভাব উপজিল মনে ॥ কদম্বকুসুম সম অঙ্গে কাটা দিল । থর থরি সব অঙ্গ কাপিতে লাগিল ॥ ঘামিয়া উঠিল দেহ তিতল বসন । ইচ্ছা অশ্রুজলে মুহি পাখালি চরণ ॥ চাচর চিকুর পৃষ্ঠে হসিত বদন । আসিতে লাগিলা প্ৰভু সঙ্গে করি গণ ॥ মোর ভাগ্যক্রমে প্ৰভু হেরিয়া আমারে । আড়ে আড়ে চাহিতে লাগিলা বারে বারে। তার পর গুড়ি গুড়ি আইলা যখন । চরণ ধরিয়া ভূমে পড়িমু তখন ॥ চরণের তলে মুহি গড় গড়ি যাই । হাত ধরি বসাইলা দয়াল নিমাই ॥ জোড় হাতে মুহি কাদি সম্মুখে বসিয়া । দুই চারি বাত পুছে হাসিয়া হাসিয়া ॥ হাসিতে অমিয় ধারা পড়ে অবিরত । অঙ্গের সৌরভে চিত্ত হইলা মোহিত ॥ হরিনামে সদা মত্ত অতি ক্ষীণ কায় । পদতলে কত ভক্ত গড়াগড়ি যায়। সে যে কিবা ভাব তাহা বলিব কেমনে । কোটি কোটি দেব আসি লুঠায় চরণে ॥ যদ্যপি দাণ্ডায় প্রভু অন্ধকার ঘরে । শরীরের আভায় আঁধার নাশ করে ॥ অমৃত ধারায় বুঝি চাদেরে ছানিয়া । কোন বিধি নিরজনে গড়েছে বসিয়া ॥ ধেই জন এইরূপ নিরখে নয়নে। বিষয়বৈরাগ্য ঘোরে তাহার পেছনে ॥ হাসি হাসি মোর সনে করি আলাপন । নাম জিজ্ঞাসিলা প্ৰভু করিয়া যতন ॥ প্রভু বলে কোন জাতি কিবা তব নাম । কিসের ব্যবসা কর কোথা তব ধাম ॥