পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১০৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


 

১৪

গোরা যখন মধ্যাহ্নে খাইতে বসিল আনন্দময়ী আস্তে আস্তে কথা পাড়িলেন, “আজ সকালে বিনয় এসেছিল। তােমার সঙ্গে দেখা হয় নি ?”

 গােরা খাবার থালা হইতে মুখ না তুলিয়া কহিল, “হাঁ, হয়েছিল।”

 আনন্দময়ী অনেক ক্ষণ চুপ করিয়া বসিয়া রহিলেন ; তাহার পর কহিলেন, “তাকে থাকতে বলেছিলুম, কিন্তু সে কেমন অন্যমনস্ক হয়ে চলে গেল।”

 গােরা কোনাে উত্তর করিল না। আনন্দময়ী কহিলেন, “তার মনে কী একটা কষ্ট হয়েছে গােরা। আমি তাকে এমন কখনাে দেখি নি। আমার মন বড়াে খারাপ হয়ে আছে।”

 গােরা চুপ করিয়া খাইতে লাগিল। আনন্দময়ী অত্যন্ত স্নেহ করিতেন বলিয়াই গােরাকে মনে মনে একটু ভয় করিতেন। সে যখন নিজে তাঁহার কাছে মন না খুলিত তখন তিনি তাহাকে কোনাে কথা লইয়া পীড়াপীড়ি করিতেন না। অন্যদিন হইলে এইখানেই চুপ করিয়া যাইতেন, কিন্তু আজ বিনয়ের জন্য তাঁহার মন বড়ো বেদনা পাইতেছিল বলিয়াই কহিলেন, “দেখাে, গােরা, একটি কথা বলি, রাগ কোরো না। ভগবান অনেক মানুষ সৃষ্টি করেছেন কিন্তু সকলের জন্যে কেবল একটি মাত্র পথ খুলে রাখেন নি। বিনয় তােমাকে প্রাণের মতাে ভালােবাসে, তাই সে তােমার কাছ থেকে সমস্তই সহ্য করে কিন্তু তােমারই পথে তাকে চলতে হবে, এ জবরদস্তি করলে সেটা সুখের হবে না।”

 গােরা কহিল, “মা, আর-একটু দুধ এনে দাও।”

 কথাটা এইখানেই চুকিয়া গেল। আহারান্তে আনন্দময়ী তাঁহার তক্তপােশে চুপ করিয়া বসিয়া সেলাই করিতে লাগিলেন। লছমিয়া বাড়ির বিশেষ কোনাে ভৃত্যের দুর্ব্যবহারসম্বন্ধীয় আলােচনায় আনন্দময়ীকে টানিবার

বৃথা চেষ্টা করিয়া মেজের উপর শুইয়া পড়িয়া ঘুমাইতে লাগিল।

৯৯