পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪১৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।


পরিচিত মাতার, বুদ্ধিতে উদ্‌ভাসিত আর-একটি নম্র সুন্দর মুখের সঙ্গে তাহার নূতন পরিচয়।

 জেলের নিরানন্দ সংকীর্ণতার মধ্যে গােরা এই মুখের স্মৃতির সঙ্গে বিরােধ করিতে পারে নাই। এই ধ্যানের পুলকটুকু তাহার জেলখানার মধ্যে একটি গভীরতর মুক্তিকে আনিয়া দিত। জেলখানার কঠিন স্থূল বন্ধন তাহার কাছে যেন ছায়াময় মিথ্যা স্বপ্নের মতাে হইয়া যাইত। তাহার স্পন্দিত হৃদয়ের অতীন্দ্রিয় তরঙ্গগুলি জেলের সমস্ত প্রাচীর অবাধে ভেদ করিয়া, আকাশে মিশিয়া, সেখানকার পুষ্পপল্লবে হিল্লোলিত এবং সংসার-কর্মক্ষেত্রে লীলায়িত হইতে থাকিত।

 গােরা মনে করিয়াছিল, কল্পনামূর্তিকে ভয় করিবার কোনাে কারণ নাই। এইজন্য এই এক-মাস-কাল ইহাকে একেবারেই সে পথ ছাড়িয়া দিয়াছিল। গােরা জানিত, ভয় করিবার বিষয় কেবলমাত্র বাস্তব পদার্থ।

 জেল হইতে বাহির হইবা মাত্র গােরা যখন পরেশবাবুকে দেখিল তখন তাহার মন আনন্দে উচ্ছ্বসিত হইয়া উঠিয়াছিল। সে যে কেবল পরেশবাবুকে দেখার আনন্দ তাহা নহে, তাহার সঙ্গে গােরার এই কয়দিনের সঙ্গিনী কল্পনাও যে কতটা নিজের মায়া মিশ্রিত করিয়াছিল তাহা প্রথমটা গােরা বুঝিতে পারে নাই। কিন্তু, ক্রমেই বুঝিল। স্টিমারে আসিতে আসিতে সে স্পষ্টই অনুভব করিল, পরেশবাবু যে তাহাকে আকর্ষণ করিতেছেন সে কেবল তাঁহার নিজগুণে নহে।

 এতদিন পরে গােরা আবার কোমর বঁধিল। বলিল, ‘হার মানিব না।’ স্টিমারে বসিয়া বসিয়া, আবার দূরে যাইবে, কোনাে প্রকার সূক্ষ্ম বন্ধনেও সে নিজের মনকে বাঁধিতে দিবে না, এই সংকল্প মনে আঁটিল।

 এমন সময় বিনয়ের সঙ্গে তাহার তর্ক বাধিয়া গেল। বিচ্ছেদের পর বন্ধুর সঙ্গে এই প্রথম মিলনেই তর্ক এমন প্রবল হইত না। কিন্তু, আজ এই তর্কের মধ্যে তাহার নিজের সঙ্গেও তর্ক ছিল। এই তর্ক-উপলক্ষে নিজের প্রতিষ্ঠাভূমিকে গােরা নিজের কাছেও স্পষ্ট করিয়া লইতেছিল। এইজন্যই

৪০৯