পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪২৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।


অকৃতজ্ঞ নই, তার সাক্ষ্য প্রমাণ হাজির।”

 সুচরিতা কহিল, “ওতে কেবল আপনারই গুণের পরিচয় দিচ্ছেন।”

 বিনয় কহিল, “আমার গুণের পরিচয় কিন্তু আমার কাছে কিছু পাবেন। পেতে চান তাে মার কাছে আসবেন, স্তম্ভিত হয়ে যাবেন, ওঁর মুখে যখন শুনি আমি নিজেই আশ্চর্য হয়ে যাই। মা যদি আমার জীবনচরিত লেখেন তা হলে আমি সকাল-সকাল মরতে রাজি আছি।”

 আনন্দময়ী কহিলেন, “শুনছ একবার ছেলের কথা?”

 গােরা কহিল, “বিনয়, তােমার বাপ-মা সার্থক তােমার নাম রেখেছিলেন।”

 বিনয় কহিল, “আমার কাছে বােধ হয় তাঁরা আর-কোনাে গুণ প্রত্যাশা করেন নি বলেই বিনয় গুণটির জন্যে দোহাই পেড়ে গিয়েছেন, নইলে সংসারে হাস্যাস্পদ হতে হত।”

 এমনি করিয়া প্রথম আলাপের সংকোচ কাটিয়া গেল।

 বিদায় লইবার সময় সুচরিতা বিনয়কে বলিল, “আপনি একবার আমাদের ও দিকে যাবেন না?”

 সুচরিতা বিনয়কে যাইতে বলিল, গােরাকে বলিতে পারিল না। গােরা তাহার ঠিক অর্থটা বুঝিল না, তাহার মনের মধ্যে একটা আঘাত বাজিল। বিনয় যে সহজেই সকলের মাঝখানে আপনার স্থান করিয়া লইতে পারে আর গােরা তাহা পারে না, এজন্য গােরা ইতিপূর্বে কোনােদিন কিছুমাত্র খেদ অনুভব করে নাই- আজ নিজের প্রকৃতির এই অভাবকে অভাব বলিয়া বুঝিল।


৫৫

ললিতার সঙ্গে তাহর বিবাহপ্রসঙ্গ আলােচনা করিবার জন্যই যে সুচরিতা বিনয়কে ডাকিয়া গেল, বিনয় তাহা বুঝিয়াছিল। এই প্রস্তাবটিকে সে শেষ

৪১৩