পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪২৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।


এইজন্য, সত্যই যে বিনয়ের চরম অবলম্বন ইহাই সে বার বার করিয়া নিজের মনকে বলিতে লাগিল। এমন-কি, সত্যকেই সে যে আশ্রয় করিতে পারিয়াছে ইহাই মনে করিয়া নিজের প্রতি তাহার ভারি একটা শ্রদ্ধা জন্মিল। এইজন্য বিনয় অপরাহ্নে সুচরিতার বাড়ির দিকে যখন গেল তখন বেশ একটু মাথা তুলিয়া গেল। সত্যের দিকেই ঝুঁকিয়াছে বলিয়া তাহার এত জোর ঝোকটা আর-কিছুর দিকে, সে কথা বিনয়ের বুঝিবার অবস্থা ছিল না।

 হরিমােহিনী তখন রন্ধনের উদ্যােগ করিতেছিলেন। বিনয় সেখানে রন্ধনশালার দ্বারে ব্রাহ্মণতনয়ের মধ্যাহ্নভােজনের দাবি মঞ্জুর করাইয়া উপরে চলিয়া গেল।

 সুচরিতা একটা সেলাইয়ের কাজ লইয়া সেই দিকে চোখ নামাইয়া অঙ্গুলিচালনা করিতে করিতে আলােচ্য কথাটা পাড়িল। কহিল, “দেখুন, বিনয়বাবু, ভিতরকার বাধা যেখানে নেই সেখানে বাইরের প্রতিকূলতাকে কি মেনে চলতে হবে?”

 গােরার সঙ্গে যখন তর্ক হইয়াছিল তখন বিনয় বিরুদ্ধ যুক্তি প্রয়ােগ করিয়াছে। আবার সুচরিতার সঙ্গে যখন আলােচনা হইতে লাগিল তখনও সে উল্‌টা পক্ষের যুক্তি প্রয়ােগ করিল। তখন গােরার সঙ্গে তাহার যে কোনো মতবিরােধ আছে এমন কথা কে মনে করিতে পারিবে।

 বিনয় কহিল, “দিদি, বাইরের বাধাকে তােমরাও তাে খাটো করে দেখছ না।”

 সুচরিতা কহিল, “তার কারণ আছে বিনয়বাবু। আমাদের বাধাটা ঠিক বাইরের বাধা নয়। আমাদের সমাজ যে আমাদের ধর্মবিশ্বাসের উপরে প্রতিষ্ঠিত। কিন্তু, আপনি যে সমাজে আছেন সেখানে আপনার বন্ধন কেবলমাত্র সামাজিক বন্ধন। এইজন্যে যদি ললিতাকে ব্রাহ্মসমাজ পরিত্যাগ করে যেতে হয় তার সেটাতে যত গুরুতর ক্ষতি, আপনার সমাজত্যাগে আপনার ততটা ক্ষতি নয়।”

 ধর্ম মানুষের ব্যক্তিগত সাধনার জিনিস, তাহাকে কোনাে সমাজের সঙ্গে

৪১৫