পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪৫৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।


আন্দোলিত করিয়া তুলিল। গােরা যে কোনাে-একটা বিষয় লইয়া তর্ক করিতেছে তাহা সুচরিতার মনে রহিল না, তাহার কাছে কেবল এই সত্যটুকুই জাগিতে লাগিল যে গােরা বলিতেছে।

 গােরা কহিল, “আপনাদের সমাজই ভারতের বিশ কোটি লােককে সৃষ্টি করে নি; কোন্ পন্থা এই বিশ কোটি লােকের পক্ষে উপযােগী কোন্ বিশ্বাস কোন্ আচার এদের সকলকে খাদ্য দেবে, শক্তি দেবে, তা বেঁধে দেবার ভার জোর করে নিজের উপর নিয়ে এতবড়াে ভারতবর্ষকে একেবারে একাকার সমতল করে দিতে চান কী ব’লে। এই অসাধ্য-সাধনে যতই বাধা পাচ্ছেন ততই দেশের উপর আপনাদের রাগ হচ্ছে, অশ্রদ্ধা হচ্ছে, ততই যাদের হিত করতে চান তাদের ঘৃণা করে পর করে তুলছেন। অথচ যে ঈশ্বর মানুষকে বিচিত্র করে সৃষ্টি করেছেন এবং বিচিত্রই রাখতে চান, তাঁকেই আপনারা পূজা করেন, এই কথা কল্পনা করেন। যদি সত্যই আপনারা তাকে মানেন তবে তার বিধানকে আপনারা স্পষ্ট করে দেখতে পান না কেন, নিজের বুদ্ধির এবং দলের অহংকারে কেন এর তাৎপর্যটি গ্রহণ করছেন না!”

 সুচরিতা কিছুমাত্র উত্তর দিবার চেষ্টা না করিয়া চুপ করিয়া গােরার কথা। শুনিয়া যাইতেছে দেখিয়া গােরার মনে করুণার সঞ্চার হইল। সে একটুখানি থামিয়া গলা নামাইয়া কহিল, “আমার কথাগুলাে আপনার কাছে হয়তাে কঠোর শােনাচ্ছে কিন্তু আমাকে একটা বিরুদ্ধপক্ষের মানুষ বলে মনে কোনাে বিদ্রোহ রাখবেন না। আমি যদি আপনাকে বিরুদ্ধপক্ষ বলে মনে করতুম তা হলে কোনাে কথাই বলতুম না। আপনার মনে যে একটি স্বাভাবিক উদার শক্তি আছে সেটা দলের মধ্যে সংকুচিত হচ্ছে বলে আমি কষ্ট বােধ করছি।”

 সুচরিতার মুখ আরক্তিম হইল; সে কহিল, “না না, আমার কথা আপনি কিছু ভাববেন না। আপনি বলে যান, আমি বােঝবার চেষ্টা করছি।”

 গােরা কহিল, “আমার আর-কিছুই বলবার নেই— ভারতবর্ষকে আপনি আপনার সহজ বুদ্ধি সহজ হৃদয় দিয়ে দেখুন, একে আপনি ভালােবাসুন।

৪৪৩