পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪৫৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।


 হারানবাবু কহিলেন, “আচ্ছা বেশ, ও কথাটার মীমাংসা এখন না হলেও চলবে। কিন্তু আমি আপনাকে জিজ্ঞাসা করছি, বিনয় যে পরেশবাবুর ঘরে বিবাহ করবার চেষ্টা করছেন আপনি কি তাতে বাধা দেবেন না?”

 গােরা লাল হইয়া উঠিয়া কহিল, “হারানবাবু, বিনয়ের সম্বন্ধে এ-সমস্ত আলােচনা কি আমি আপনার সঙ্গে করতে পারি? আপনি সর্বদাই যখন মানবচরিত্র নিয়ে আছেন তখন এটাও আপনার বােঝা উচিত ছিল যে, বিনয় আমার বন্ধু এবং সে আপনার বন্ধু নয়।”

 হারানবাবু কহিলেন, “এই ব্যাপারের সঙ্গে ব্রাহ্মসমাজের যােগ আছে বলেই আমি এ কথা তুলেছি, নইলে—”

 গােরা কহিল, “কিন্তু আমি তাে ব্রাহ্মসমাজের কেউ নই, আমার কাছে আপনার এই দুশ্চিন্তার মূল্য কী আছে।”

 এমন সময় সুচরিতা ঘরে প্রবেশ করিল। হারানবাবু তাহাকে কহিলেন, “সুচরিতা, তােমার সঙ্গে আমার একটু বিশেষ কথা আছে।”

 এটুকু বলিবার যে কোনো আবশ্যক ছিল তাহা নহে। গােরার কাছে সুচরিতার সঙ্গে বিশেষ ঘনিষ্ঠতা প্রকাশ করিবার জন্যই হারানবাবু গায়ে পড়িয়া কথাটা বলিলেন। সুচরিতা তাহার কোনাে উত্তরই করিল না; গােরা নিজের আসনে অটল হইয়া বসিয়া রহিল, হারানবাবুকে বিশ্রম্ভালাপের অবকাশ দিবার জন্য সে উঠিবার কোনােপ্রকার লক্ষণ দেখাইল না।

 হারানবাবু কহিলেন, “সুচরিতা, একবার ও ঘরে চলো তো, একটা কথা বলে নিই।”

 সুচরিতা তাহার উত্তর না দিয়া গােরার দিকে চাহিয়া জিজ্ঞাসা করিল, “আপনার মা ভালো আছেন?”

 গােরা কহিল, “মা ভালো নেই এমন তাে কখনাে দেখি নি।”

 সুচরিতা কহিল, “ভালাে থাকবার শক্তি যে তাঁর পক্ষে কত সহজ তা আমি দেখেছি।”

 গােরা যখন জেলে ছিল তখন আনন্দময়ীকে সুচরিতা দেখিয়াছিল সেই

৪৪৮