পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


বিশেষভাবে আকৃষ্ট হইয়া পড়িল; আবার এই সময়টাতেই কৃষ্ণদয়াল ঘােরতর আচারনিষ্ঠ হইয়া উঠিলেন। এমন-কি, গােরা তাঁহার ঘরে গেলেও তিনি ব্যতিব্যস্ত হইয়া উঠিতেন। গুটি দুই-তিন ঘর লইয়া তিনি নিজের মহল স্বতন্ত্র করিয়া রাখিলেন। ঘটা করিয়া সেই মহলের দ্বারের কাছে ‘সাধনাশ্রম’ নাম লিখিয়া কাষ্টফলক লট্‌কাইয়া দিলেন।

 বাপের এই কাণ্ডকারখানায় গােরার মন বিদ্রোহী হইয়া উঠিল। সে বলিল, ‘আমি এ-সমস্ত মূঢ়তা সহ্য করিতে পারি না— এ আমার চক্ষুশূল।’ এই উপলক্ষে গােরা তাহার বাপের সঙ্গে সমস্ত সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন করিয়া একেবারে বাহির হইয়া যাইবার উপক্রম করিয়াছিল, আনন্দময়ী তাহাকে কোনাে রকমে ঠেকাইয়া রাখিয়াছিলেন।

 বাপের কাছে যে-সকল ব্রাহ্মণপণ্ডিতের সমাগম হইতে লাগিল গােরা জো পাইলেই তাঁহাদের সঙ্গে তর্ক বাধাইয়া দিত। সে তো তর্ক নয়, প্রায় ঘুষি বলিলেই হয়। তাহাদের অনেকেরই পাণ্ডিত্য অতি যৎসামান্য এবং অর্থলােভ অপরিমিত ছিল; গােরাকে তাঁহারা পারিয়া উঠিতেন না, তাহাকে বাঘের মতাে ভয় করিতেন। ইহাদের মধ্যে কেবল হরচন্দ্র বিদ্যাবাগীশের প্রতি গােরার শ্রদ্ধা জন্মিল।

 বেদান্তচৰ্চা করিবার জন্য বিদ্যাবাগীশকে কৃষ্ণদয়াল নিযুক্ত করিয়াছিলেন। গােরা প্রথমেই ইহার সঙ্গে উদ্ধতভাবে লড়াই করিতে গিয়া দেখিল, লড়াই চলে না। লােকটি যে কেবল পণ্ডিত তাহা নয়, তাঁহার মতের ঔদার্য অতি আশ্চর্য। কেবল সংস্কৃত পড়িয়া এমন তীক্ষ্ণ অথচ প্রশস্ত বুদ্ধি যে হইতে পারে, গােরা তাহা কল্পনাও করিতে পারিল না। বিদ্যাবাগীশের চরিত্রে ক্ষমা ও শাস্তিতে পূর্ণ এমন একটি অবিচলিত ধৈর্য ও গভীরতা ছিল যে, তাঁহার কাছে নিজেকে সংযত না করা গােরার পক্ষে সম্পূর্ণ অসম্ভব ছিল। হরচন্দ্রের কাছে গােরা বেদান্তদর্শন পড়িতে আরম্ভ করিল। গােরা কোনো কাজ আধাআধি রকম করিতে পারে না, সুতরাং দর্শন-আলােচনার মধ্যে সে একেবারে তলাইয়া গেল।

৩৮