পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪৮২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।


ললিতার সঙ্গে বিনয়ের বিবাহে যখন দোষ কিছু নেই, এমনকি সেটা উচিত, তখন সমাজে যদি বাধে তবে সে বাধা মানা কর্তব্য নয় বলে আমার মন বলছে। মানুষকেই সমাজের খাতিরে সংকুচিত হয়ে থাকতে হবে এ কথা কখনােই ঠিক নয়; সমাজকেই মানুষের খাতিরে নিজেকে কেবলই প্রশস্ত করে তুলতে হবে। সেজন্যে যারা দুঃখ স্বীকার করতে রাজি আছে আমি তাে তাদের নিন্দা করতে পারব না।”

 সুচরিতা কহিল, “বাবা, এতে তােমাকেই সব চেয়ে বেশি দুঃখ পেতে হবে।”

 পরেশ কহিলেন, “সে কথা ভাববার কথাই নয়।”

 সুচরিতা জিজ্ঞাসা করিল, “বাবা, তুমি কি সম্মতি দিয়েছ?”

 পরেশ কহিলেন, “না, এখনাে দিই নি। কিন্তু দিতেই হবে। ললিতা যে পথে যাচ্ছে সে পথে আমি ছাড়া কে তাকে আশীর্বাদ করবে, আর ঈশ্বর ছাড়া কে তার সহায় আছেন?”

 পরেশবাবু যখন চলিয়া গেলেন তখন সুচরিতা স্তম্ভিত হইয়া বসিয়া রহিল। সে জানিত পরেশ ললিতাকে মনে মনে কত ভালােবাসেন, সেই ললিতা বাঁধা পথ ছাড়িয়া দিয়া এতবড় একটা অনির্দেশ্যের মধ্যে প্রবেশ করিতে চলিয়াছে, ইহাতে তাহার মন যে কত উদ্‌বিগ্ন তাহা তাহার বুঝিতে বাকি ছিল না— তৎসত্ত্বে এই বয়সে তিনি এমন একটা বিপ্লবে সহায়তা করিতে চলিয়াছেন, অথচ ইহার মধ্যে বিক্ষোভ কতই অল্প! নিজের জোর তিনি কোথাও কিছুমাত্র প্রকাশ করেন নাই, কিন্তু তাঁহার মধ্যে কতবড়াে জোর অনায়াসেই আত্মগােপন করিয়া আছে!

 পূর্বে হইলে পরেশের প্রকৃতির এই পরিচয় তাহার কাছে বিচিত্র বলিয়া ঠেকিত না, কেননা পরেশকে শিশুকাল হইতেই তাে সে দেখিয়া আসিতেছে। কিন্তু আজই, কিছু ক্ষণ পূর্বেই নাকি সুচরিতার সমস্ত অন্তঃকরণ গােরার অভিঘাত সহ্য করিয়াছে, সেই জন্য এই দুই শ্রেণীর স্বভাবের সম্পূর্ণ পার্থক্য সে মনে মনে সুস্পষ্ট অনুভব না করিয়া থাকিতে পারিল না। গােরার কাছে

৪৭২