পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


 ঘটনাক্রমে এই সময়ে একজন ইংরেজ মিশনারি কোনাে সংবাদপত্রে হিন্দুশাস্ত্র ও সমাজকে আক্রমণ করিয়া দেশের লােককে তর্কযুদ্ধে আহ্বান করিলেন। গােরা তাে একেবারে আগুন হইয়া উঠিল। যদিচ সে নিজে অবকাশ পাইলেই শাস্ত্র ও লােকাচারের নিন্দা করিয়া বিরুদ্ধ মতের লােককে যত রকম করিয়া পারে পীড়া দিত, তবু হিন্দুসমাজের প্রতি বিদেশী লােকের অবজ্ঞা তাহাকে যেন অঙ্কুশে আহত করিয়া তুলিল।

 সংবাদপত্রে গােরা লড়াই শুরু করিল। অপর পক্ষে হিন্দুসমাজকে যতগুলি দোষ দিয়াছিল গােরা তাহার একটাও এবং একটুও স্বীকার করিল ন। দুই পক্ষে অনেক উত্তর চালাচালি হইলে পর সম্পাদক বলিলেন, ‘আমরা আর বেশি চিঠিপত্র ছাপিব না।’

 কিন্তু, গােরার তখন রােখ চড়িয়া গেছে। সে ‘হিণ্ডুয়িজ্‌ম্‌ নাম দিয়া ইংরেজিতে এক বই লিখিতে লাগিল; তাহাতে তাহার সাধ্যমত সমস্ত যুক্তি ও শাস্ত্র ঘাঁটিয়া হিন্দুধর্ম ও সমাজের অনিন্দনীয় শ্রেষ্ঠত্বের প্রমাণ সংগ্রহ করিতে বসিয়া গেল।

 এমনি করিয়া মিশনারির সঙ্গে ঝগড়া করিতে গিয়া গােরা আস্তে আস্তে নিজের ওকালতির কাছে নিজে হার মানিল। গােরা বলিল, ‘আমার আপন দেশকে বিদেশীর আদালতে আসামির মতাে খাড়া করিয়া বিদেশীর আইনমতে তাহার বিচার করিতে আমরা দিবই না। বিলাতের আদর্শের সঙ্গে খুঁটিয়া খুঁটিয়া মিল করিয়া আমরা লজ্জাও পাইব না, গৌরবও বােধ করিব না। যে দেশে জন্মিয়াছি সে দেশের আচার বিশ্বাস শাস্ত্র ও সমাজের জন্য পরের ও নিজের কাছে কিছুমাত্র সংকুচিত হইয়া থাকিব না। দেশের যাহা কিছু আছে তাহার সমস্তই সবলে ও সগর্বে মাথায় করিয়া লইয়া দেশকে ও নিজেকে অপমান হইতে রক্ষা করিব।’

 এই বলিয়া গােরা গঙ্গাস্নান ও সন্ধ্যাহ্নিক করিতে লাগিল, টিকি রাখিল, খাওয়া-ছোঁওয়া সম্বন্ধে বিচার করিয়া চলিল। এখন হইতে প্রত্যহ সকাল- বেলায় সে বাপ-মায়ের পায়ের ধুলা লয়; যে মহিমকে সে কথায় কথায়

৩৯