পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪৯৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।


 

৬২

হরিমােহিনী জিজ্ঞাসা করিলেন, “রাধারানী, কাল রাত্রে তুমি কিছু খেলে কেন ?”

 সুচরিতা বিস্মিত হইয়া কহিল, “কেন, খেয়েছি বৈকি।” হরিমােহিনী তাহার ঢাকা খাবার দেখাইয়া কহিলেন, “কোথায় খেয়েছ ? ওই-যে পড়ে রয়েছে।”

 তখন সুচরিতা বুঝিল, কাল খাবার কথা তাহার মনেই ছিল না।

 হরিমােহিনী রুক্ষ স্বরে কহিলেন, “এ-সব তত ভালাে কথা নয়। আমি তােমাদের পরেশবাবুকে যতদূর জানি, তিনি যে এতদুর সব বাড়াবাড়ি ভালােবাসেন তা তাে আমার মনে হয় না; তাকে দেখলে মানুষের মন শান্ত হয়। তােমার আজকালকার ভাবগতিক তিনি যদি সব জানতে পারেন তা হলে কী বলবেন বলাে দেখি।” .

 হরিমােহিনীর কথার লক্ষ্যটা কী তাহা সুচরিতার বুঝিতে বাকি রহিল না। প্রথমটা মুহূর্তকালের জন্য তাহার মনের মধ্যে সংকোচ আসিয়াছিল। গােরার সহিত তাহার সম্বন্ধকে নিতান্ত সাধারণ স্ত্রীপুরুষের সম্বন্ধের সহিত সমান করিয়া এমনতরাে একটা অপবাদের কটাক্ষ যে তাহাদের উপরে পড়িতে পারে, এ কথা সে কখনাে চিন্তাই করে নাই। সেই জন্য হরিমােহিনীর বক্রোক্তিতে সে কুণ্ঠিত হইয়া পড়িল । কিন্তু পরক্ষণেই হাতের কাজ ফেলিয়া সে খাড়া হইয়া বসিল এবং হরিমােহিনীর মুখের দিকে চোখ তুলিয়া চাহিল।

 গােরার কথা লইয়া সে মনের মধ্যে কাহারও কাছে কোনাে লজ্জা রাখিবে না, ইহা মুহূর্তের মধ্যে সে স্থির করিল এবং কহিল, “মাসি, তুমি তো জানাে, কাল গৌরমােহনবাবু এসেছিলেন। তার সঙ্গে আলাপের বিষয়টি আমার মনকে খুব ধিকার করে বসেছিল, সেই জন্যে আমি খাবারের কথা ভুলেই গিয়েছিলুম। তুমি থাকলে কাল অনেক কথা শুনতে পেতে।”

৪৮৫