পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫০১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


মাত্রও করিতেছে না, তখন এক মুহূর্তে তাঁহার ক্রোধের শিখা ব্রহ্মরন্ধ্র পর্যন্ত যেন বিদ্যুদ্‌বেগে জ্বলিয়া উঠিল। আত্মসম্বরণ করিয়া তিনি দ্বারে দাঁড়াইয়া ডাকিলেন, “রাধারানী।”

 সুচরিতা উঠিয়া তাঁহার কাছে আসিলে তিনি মৃদুস্বরে কহিলেন, “আজ একাদশী, আমার শরীর ভালাে নেই, যাও তুমি রান্নাঘরে গিয়ে উনানটা ধরাও গে— আমি তত ক্ষণ গৌরবাবুর কাছে একটু বসি।”

 সুচরিতা মাসির ভাব দেখিয়া উদ্‌বিগ্ন হইয়া রান্নাঘরে চলিয়া গেল। হরিমােহিনী ঘরে প্রবেশ করিতে গোরা তাঁহাকে প্রণাম করিল। তিনি কোনাে কথা না কহিয়া চৌকিতে বসিলেন। কিছু ক্ষণ ঠোঁট চাপিয়া চুপ করিয়া থাকিয়া কহিলেন, “তুমি তাে, বাবা, ব্রাহ্ম নও?”

 গােরা কহিল, “না।”

 হরিমােহিনী কহিলেন, “আমাদের হিন্দুসমাজকে তুমি তো মানে?”

 গােরা কহিল, “মানি বৈকি।”

 হরিমােহিনী কহিলেন, “তবে তােমার এ কী রকম ব্যবহার!”

গােরা হরিমােহিনীর অভিযােগ কিছুই বুঝিতে না পারিয়া চুপ করিয়া তাঁহার মুখের দিকে চাহিয়া রহিল।

 হরিমােহিনী কহিলেন, “রাধারানীর বয়স হয়েছে, তােমরা তো ওর আত্মীয় নও- ওর সঙ্গে তােমাদের এত কী কথা! ও মেয়েমানুষ, ঘরের কাজকর্ম করবে, ওরই-বা এ-সব কথায় থাকবার দরকার কী? ওতে যে ওর মন অন্য দিকে নিয়ে যায়। তুমি তো জ্ঞানী লােক- দেশসুদ্ধ সকলেই তােমার প্রশংসা করে- কিন্তু এ-সব আমাদের দেশে কবেই-বা ছিল আর কোন্ শাস্ত্রেই-বা লেখে!”

 গােরা হঠাৎ একটা মস্ত ধাক্কা পাইল। সুচরিতার সম্বন্ধে এমন কথা যে কোনাে পক্ষ হইতে উঠিতে পারে তাহা সে চিন্তাও করে নাই। সে একটু চুপ করিয়া থাকিয়া কহিল, “ইনি ব্রাহ্মসমাজে আছেন, বরাবর এঁকে এইরকম সকলের সঙ্গে মিশতে দেখেছি, সেইজন্যে আমার কিছু মনে হয় নি।”

৪৯১