পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫২৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


হিন্দু-হিন্দু করিয়া কাঁদিয়া-কাটিয়া অস্থির, ও দিকে এতবড়াে একটা সুযােগের কথায় কর্ণপাত নাই! প্রায়শ্চিত্ত করিতে হইবে না, কোনাে কৈফিয়তটি দিতে হইবে না, কেবল এ দিকে ও দিকে অল্পস্বল্প কিছু টাকা খরচ করিয়া অনায়াসেই সমাজে চলিয়া যাইবে- ইহাতেও যাহার উৎসাহ হয় না সে আপনাকে বলে কিনা হিন্দু!’ গােরা যে কতবড়াে ফাঁকি হরিমােহিনীর তাহা বুঝিতে বাকি রহিল না। অথচ এমনতরাে বিড়ম্বনার উদ্দেশ্য কী হইতে পারে তাহা চিন্তা করিতে গিয়া সুচরিতার অর্থই সমস্ত অনর্থের মূল বলিয়া তাঁহার মনে হইল, এবং সুচরিতার রূপযৌবন। যত শীঘ্র কোম্পানির কাগজাদি-সহ কন্যাটিকে উদ্ধার করিয়া তাঁহার শ্বাশুরিক দুর্গে আবদ্ধ করিতে পারেন ততই মঙ্গল। কিন্তু মন আর-একটু নরম না হইলে চলিবে না। সেই নরম হইবার প্রত্যাশায় তিনি দিনরাত্রি সুচরিতার কাছে তাঁহার শ্বশুরবাড়ির ব্যাখ্যা করিতে লাগিলেন। তাহাদের ক্ষমতা কিরূপ অসামান্য, সমাজে তাহারা কিরূপ অসাধ্যসাধন করিতে পারে, নানা দৃষ্টান্ত -সহ তাহার বর্ণনা করিতে লাগিলেন। তাহাদের প্রতিকূলতা করিতে গিয়া কত নিষ্কলঙ্ক লােক সমাজে নিগ্রহ ভোগ করিয়াছে এবং তাহাদের শরণাপন্ন হইয়া কত লােক মুসলমানের-রান্না মুর্গি খাইয়াও হিন্দুসমাজের অতি দুর্গম পথ হাস্যমুখে উত্তীর্ণ হইয়াছে, নামধাম-বিবরণ-দ্বারা তিনি সে-সকল ঘটনাকে বিশ্বাসযােগ্য করিয়া তুলিলেন।

 সুচরিতা তাঁহাদের বাড়িতে যাতায়াত না করে বরদাসুন্দরীর এ ইচ্ছা গােপন ছিল না, কারণ, নিজের স্পষ্ট ব্যবহার সম্বন্ধে তাঁহার একটা অভিমান ছিল। অন্যের প্রতি অসংকোচে কঠোরাচরণ করিবার সময় তিনি নিজের এই গুণটি প্রায়ই ঘােষণা করিতেন। অতএব বরদাসুন্দরীর ঘরে সুচরিতা যে কোনােপ্রকার সমাদর প্রত্যাশা করিতে পারিবে না, ইহা সহজবােধ্য ভাষাতেই তাহার নিকট ব্যক্ত হইয়াছে। সুচরিতা ইহাও জানিত যে, সে তাঁহাদের বাড়িতে যাওয়া-আসা করিলে পরেশকে ঘরের মধ্যে অত্যন্ত অশান্তি ভােগ করিতে হইত। এই জন্য সে নিতান্ত প্রয়ােজন না হইলে

৫১৯