পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৩৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


 সতীশ এ কথা সম্পূর্ণ অবিশ্বাস করিল। তখন সুচরিতা সতীশকে কোলের কাছে দৃঢ় করিয়া টানিয়া কহিল, “আচ্ছা, ভাই বক্তিয়ার, তুই বড়ো হলে কী হবি বল্‌ দেখি।”

 ইহার উত্তর সতীশের মনের মধ্যে প্রস্তুত ছিল। তাহার ক্লাসের শিক্ষকই তাহার কাছে অপ্রতিহত ক্ষমতা ও অসাধারণ পাণ্ডিত্যের আদর্শস্থল ছিল- সে পূর্ব হইতেই মনে মনে স্থির করিয়া রাখিয়াছিল, সে বড়াে হইলে মাস্টারমশায় হইবে।

 সুচরিতা তাহাকে কহিল, “অনেক কাজ করবার আছে ভাই। আমাদের দুই ভাইবােনের কাজ আমরা দুজনে মিলে করব। কী বলিস সতীশ? আমাদের দেশকে প্রাণ দিয়ে বড়ো করে তুলতে হবে। বড়ো করব কী! আমাদের দেশের মতো বড়াে আর কী আছে! আমাদের প্রাণকেই বড়াে করে তুলতে হবে। জানিস? বুঝতে পেরেছিস?”

 বুঝিতে পারিল না এ কথা সতীশ সহজে স্বীকার করিবার পাত্র নয়। সে জোরের সহিত বলিল, “হাঁ।”

 সুচরিতা কহিল, “আমাদের যে দেশ, আমাদের যে জাত, সে কত বড়ো তা জানিস? সে আমি তােকে বােঝাব কেমন করে। এ এক আশ্চর্য দেশ। এই দেশকে পৃথিবীর সকলের চূড়ার উপরে বসাবার জন্যে কত হাজার হাজার বৎসর ধরে বিধাতার আয়ােজন হয়েছে, দেশ বিদেশ থেকে কত লােক এসে এই আয়ােজনে যােগ দিয়েছে, এ দেশে কত মহাপুরুষ জন্মেছেন, কত মহাযুদ্ধ ঘটেছে, কত মহাবাক্য এইখান থেকে বলা হয়েছে, কত মহাতপস্যা এইখানে সাধন করা হয়েছে, ধর্মকে এ দেশ কত দিক থেকে দেখেছে এবং জীবনের সমস্যার কতরকম মীমাংসা এই দেশে হয়েছে। সেই আমাদের এই ভারতবর্ষ। একে খুব মহৎ বলেই জানিস ভাই- একে কোনােদিন ভুলেও অবজ্ঞা করিস নে। তােকে আজ আমি যা বলছি একদিন সে কথা তােকে বুঝতেই হবে- আজও তুই যে কিছু বুঝতে পারিস নি আমি তা মনে করি নে। এই কথাটি তােকে মনে রাখতে হবে, খুব একটা

৫২৯