পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৪৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


অমনিতেই তাে ঢের কথা উঠবে, তা সে আমি কাটিয়ে দিতে পারব, কিন্তু এখন থেকে কিছুদিন ওঁকে সামলে চলা চাই। লােকে তাে প্রথমেই জিজ্ঞাসা করে, এত বয়স হল ওঁর বিয়েথাওয়া হল না কেন- সে এক রকম করে চাপাচুপি দিয়ে রাখা চলে- ভালাে পাত্রও যে চেষ্টা করলে জোটে না তা নয় কিন্তু উনি যদি আবার ওঁর সাবেক চাল ধরেন তা হলে আমি কত দিকে সামলাব বলে। তুমি তাে হিঁদুঘরের মেয়ে, তুমি তাে সব বােঝ, তুমিই বা এমন কথা বল কোন্ মুখে। তােমার নিজের মেয়ে যদি থাকত তাকে কি এই বিয়েতে পাঠাতে পারতে? তােমাকে তাে ভাবতে হত মেয়ের বিয়ে দেবে কেমন করে।”

 আনন্দময়ী বিস্মিত হইয়া সুচরিতার মুখের দিকে চাহিলেন— তাহার মুখ রক্তবর্ণ হইয়া ঝাঁ ঝাঁ করিতে লাগিল। আনন্দময়ী কহিলেন, “আমি কোনাে জোর করতে চাই নে। সুচরিতা যদি আপত্তি করেন তবে আমি—”

 হরিমােহিনী বলিয়া উঠিলেন, “আমি তাে তােমাদের ভাব কিছুই বুঝে উঠতে পারি নে। তােমারই তাে ছেলে ওঁকে হিন্দুমতে লইয়েছেন, তুমি হঠাৎ আকাশ থেকে পড়লে চলবে কেন।”

 পরেশবাবুর বাড়িতে সর্বদাই অপরাধভীরুর মতাে যে হরিমােহিনী ছিলেন, যিনি কোনাে মানুষকে ঈষৎ-মাত্র অনুকুল বােধ করিলেই একান্ত আগ্রহের সহিত অবলম্বন করিয়া ধরিতেন, সে হরিমােহিনী কোথায়! নিজের অধিকার রক্ষা করিবার জন্য ইনি আজ বাঘিনীর মতাে দাঁড়াইয়াছেন; তাঁহার সুচরিতাকে তাঁহার কাছ হইতে ভাঙাইয়া লইবার জন্য চারি দিকে নানা বিরুদ্ধ শক্তি কাজ করিতেছে এই সন্দেহে তিনি সর্বদাই কণ্টকিত হইয়া আছেন; কে স্বপক্ষ, কে বিপক্ষ, তাহা বুঝিতেই পারিতেছেন না— এইজন্য তাঁহার মনে আজ আর স্বচ্ছলতা নাই। পূর্বে সমস্ত সংসারকে শূন্য দেখিয়া যে দেবতাকে ব্যাকুলচিত্তে আশ্রয় করিয়াছিলেন সেই দেবপূজাতেও তাঁহার চিত্ত স্থির হইতেছে না। একদিন তিনি ঘােরতরে সংসারী ছিলেন, নিদারুণ শোকে যখন তাঁহার বিষয়ে বৈরাগ্য জন্মিয়াছিল তখন তিনি মনেও করিতে

৫৩৩