পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৫৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


 কৈলাস কিছু ক্ষণ চিন্তা করিয়া শেষকালে স্থির করিল, ‘নাহয় মকদ্দমাটা এক-তরফা ডিগ্রি হয়ে ফেঁসে যাবে। তা যাক গে।’ এখানে যে তাহার ক্ষতিপূরণের আয়ােজন আছে তাহা আর-একবার চারি দিক নিরীক্ষণ করিয়া বিচার করিয়া লইল। হঠাৎ চোখে পড়িল, হরিমােহিনীর পূজার ঘরের কোণে কিছু জল জমিয়া আছে। এ ঘরে জল-নিকাশের কোনাে প্রণালী ছিল না অথচ হরিমােহিনী সর্বদাই জল দিয়া এ ঘর ধােওয়ামােছা করেন, সেইজন্য কিছু জল একটা কোণে বাধিয়াই থাকে; কৈলাস ব্যস্ত হইয়া কহিল, “বউঠাকরুন, ওটা তাে ভালাে হচ্ছে না।”

 হরিমােহিনী কহিলেন, “কেন, কী হয়েছে?”

 কৈলাস কহিল, “ওই-যে ওখানে জল বসছে, ও তো কোনােমতে চলবে না।”

 হরিমােহিনী কহিলেন, “কী করব ঠাকুরপাে।”

 কৈলাস কহিল, “না, না, সে হচ্ছে না। ছাত যে একেবারে জখম হয়ে যাবে। তা বলছি বউঠাকরুন, এ ঘরে তােমার জল-ঢালাচালি চলবে না।”

 হরিমােহিনীকে চুপ করিয়া যাইতে হইল। কৈলাস তখন কন্যাটির রূপ সম্বন্ধে কৌতূহল প্রকাশ করিল।

 হরিমােহিনী কহিলেন, “সে তো দেখলেই টের পাবে, এপর্যন্ত বলতে পারি তােমাদের ঘরে এমন বউ কখনাে হয় নি।”

 কৈলাস কহিল, “বল কী! আমাদের মেজবউ-”।

 হরিমােহিনী বলিয়া উঠিলেন, “কিসে আর কিসে! তােমাদের মেজবউ তার কাছে দাঁড়াতে পারে!”

 মেজবউকেই তাহাদের বাড়ির সুরূপের আদর্শ বলাতে হরিমােহিনী বিশেষ সন্তোষ বােধ করেন না- “তােমরা যে যাই বলো বাপু, মেজবউয়ের চেয়ে আমার কিন্তু ন-বউকে ঢের বেশি পছন্দ হয়।”

 মেজবউ ও ন-বউয়ের সৌন্দর্যের তুলনায় কৈলাস কিছুমাত্র উৎসাহ বোধ করিল না। সে মনে মনে কোন একটি অদৃষ্টপূর্ব মূর্তিতে পটল-চেরা চোখের

৫৪৪