পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৫৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


গােরার সহিত বিনয়ের যত বড়ো বিচ্ছেদই হউক, সেই গভীর স্নেহসুধার অংশ হইতে তাহাকে কিছুতেই বঞ্চিত করিতে পারিবে না, ইহা নিশ্চয় জানিয়া গােরার মনের ভিতরে একটা যেন তৃপ্তি ও শান্তি জন্মিল। আর-সব দিকেই বিনয়ের কাছ হইতে সে বহু দূরে যাইতে পারে, কিন্তু এই অক্ষয় মাতৃস্নেহের এক বন্ধনে অতি নিগূঢ়রূপে এই দুই চিরবন্ধু চিরদিনই পরস্পরের নিকটতম হইয়া থাকিবে।

 বিনয় কহিল, “ভাই, আমি তবে উঠি। নিতান্ত না যেতে পার যেয়ো না, কিন্তু মনের মধ্যে অপ্রসন্নতা রেখাে না গোরা। এই মিলনে আমার জীবন যে কত বড় একটা সার্থকতা লাভ করেছে, তা যদি মনের মধ্যে অনুভব করতে পারো তা হলে কখনাে তুমি আমাদের এই বিবাহকে তােমার সৌহৃদ্য থেকে নির্বাসিত করতে পারবে না- সে আমি তােমাকে জোর করেই বলছি।”

 এই বলিয়া বিনয় আসন হইতে উঠিয়া পড়িল। গােরা কহিল, “বিনয়, বােসাে। তােমাদের লগ্ন তাে সেই রাত্রে, এখন থেকেই এত তাড়া কিসের?”

 বিনয় গােরার এই অপ্রত্যাশিত সস্নেহ অনুরােধে বিগলিতচিত্তে তৎক্ষণাৎ বসিয়া পড়িল।

 তার পর অনেক দিন পরে আজ এই ভােরবেলায় দুই জনে পূর্বকালের মতো বিশ্রম্ভালাপে প্রবৃত্ত হইল। বিনয়ের হৃদয়বীণায় আজকাল যে তারটি পঞ্চম সুরে বাঁধা ছিল, গােরা সেই তারেই আঘাত করিল। বিনয়ের কথা আর ফুরাইতে চাহিল না। কত নিতান্ত ছােটো ছােটো ঘটনা, যাহাকে সাদা কথায় লিখিতে গেলে অকিঞ্চিৎকর, এমন-কি হাস্যকর বলিয়া বােধ হইবে, তাহারই ইতিহাস বিনয়ের মুখে যেন গানের তানের মতাে বারম্বার নব নব মাধুর্যে উচ্ছ্বসিত হইয়া উঠিতে লাগিল। বিনয়ের হৃদয়ক্ষেত্রে আজকাল যে-একটি আশ্চর্য লীলা চলিতেছে তাহারই সমস্ত অপরূপ রসবৈচিত্র্য বিনয় আপনার নিপুণ ভাষায় অতি সূক্ষ্ম অথচ গভীরভাবে হৃদয়ঙ্গম করিয়া বর্ণনা করিতে লাগিল। জীবনের এ কী অপূর্ব অভিজ্ঞতা! বিনয় যে অনির্বচনীয়

৫৪৭