পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৭১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


আর উহার স্বভাবচরিত্রের কথা বেশি করিয়া বলাই বাহুল্য। ওর স্ত্রী মরার পর ও তাে কিছুতেই বিবাহ করিতে চায় নাই; আত্মীয়স্বজন সকলে মিলিয়া অত্যন্ত বল প্রয়ােগ করাতে ও কেবল গুরুজনের আদেশ পালন করিতে প্রবৃত্ত হইয়াছে। উপস্থিত প্রস্তাবে সম্মত করিতে হরিমােহিনীকেই কি কম কষ্ট পাইতে হইয়াছে। ও কি কর্ণপাত করিতে চায়। ওরা যে মস্ত বংশ। সমাজে ওদের যে ভারী মান।

 সুচরিতা এই মান খর্ব করিতে কিছুতেই স্বীকার করিল না। কোনােমতেই না। সে নিজের গৌরব ও স্বার্থের প্রতি দৃক্‌পাতমাত্র করিল না। এমন-কি, হিন্দুসমাজে তাহার স্থান যদি নাও হয় তথাপি সে লেশমাত্র বিচলিত হইবে না, এইরূপ তাহার ভাব দেখা গেল। কৈলাসকে বহু চেষ্টায় বিবাহে রাজি করানােতে সুচরিতার পক্ষে অল্প সম্মানের কারণ হয় নাই, এ কথা সে মূঢ় কিছুতেই উপলব্ধি করিতে পারিল না; উলটিয়া সে ইহাকে অপমানের কারণ বলিয়া গণ্য করিয়া বসিল। আধুনিক কালের এই-সমস্ত বিপরীত ব্যাপারে হরিমােহিনী সম্পূর্ণ হতবুদ্ধি হইয়া গেলেন।

 তখন তিনি মনের আক্রোশে বার বার গােরার প্রতি ইঙ্গিত করিয়া খোঁচা দিতে লাগিলেন। গােরা যতই নিজেকে হিন্দু বলিয়া বড়াই করুক-না কেন, সমাজের মধ্যে উহার স্থান কী। উহাকে কে মানে। ও যদি লােভে পড়িয়া ব্রাহ্মঘরের কোনাে টাকাওয়ালা মেয়েকে বিবাহ করে, তবে সমাজের শাসন হইতে ও পরিত্রাণ লাভ করিবে কিসের জোরে। তখন দশের মুখ বন্ধ করিয়া দিবার জন্য টাকা যে সমস্ত ফুঁকিয়া দিতে হইবে। ইত্যাদি।

 সুচরিতা কহিল, “মাসি, এসব কথা তুমি কেন বলছ! তুমি জাননা এ-সব কথার কোনাে মূল নেই।”

 হরিমােহিনী তখন বলিলেন, তাঁহার যে বয়স হইয়াছে সে বয়সে কথা দিয়া তাঁহাকে ভােলানাে কাহারও পক্ষে সাধ্য নহে। তিনি চোখ-কান খুলিয়াই আছেন। দেখেন শােনেন বুঝেন সমস্তই, কেবল নিঃশকে অবাক হইয়া রহিয়াছেন। গােরা যে তাহার মাতার সঙ্গে পরামর্শ করিয়া সুচরিতাকে

৫৫৯