পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৮৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


কাজ হইয়াছে সে সম্বন্ধে গােরা নিশ্চয়ই তাঁহার সঙ্গে একমত হইবেন। হরিমােহিনী দীর্ঘকাল ধরিয়া সুচরিতার বিবাহসমস্যা সম্বন্ধে অসহয় উদ্‌বেগ ভােগ করিয়া অবশেষে বহু সাধ্যসাধনা-অনুনয়বিনয়ে তাঁহার দেবর কৈলাসকে রাজি করিয়া কলিকাতায় আনিয়াছেন। যে-সমস্ত গুরুতর বাধাবিঘ্নের আশঙ্কা করিয়াছিলেন তাহা সমস্তই ঈশ্বরেচ্ছায় কাটিয়া গিয়াছে। সমস্তই স্থির, বরপক্ষে এক পয়সা পণ পর্যন্ত লইবে না এবং সুচরিতার পূর্ব-ইতিহাস লইয়াও কোনাে আপত্তি প্রকাশ করিবে না-হরিমােহিনী বিশেষ কৌশলে এইসমস্ত সমাধান করিয়া দিয়াছেন— এমন সময়, শুনিলে লােকে আশ্চর্য হইবে, সুচরিতা একেবারে বাঁকিয়া দাঁড়াইয়াছে। কী তাহার মনের ভাব তিনি জানেন না; কেহ তাহাকে কিছু বুঝাইয়াছেন কি না, আর-কারও দিকে তাহার মন পড়িয়াছে কি না, তাহা ভগবান জানেন।-

 “কিন্তু বাপু, তােমাকে আমি খুলেই বলি, ও মেয়ে তােমার যােগ্য নয়। পাড়াগাঁয়ে ওর বিয়ে হলে ওর কথা কেউ জানতেই পারবে না, সে একরকম করে চলে যাবে। কিন্তু তােমরা শহরে থাক, ওকে যদি বিয়ে কর তা হলে শহরের লােকের কাছে মুখ দেখাতে পারবে না।”

 গােরা ক্রুদ্ধ হইয়া উঠিয়া কহিল, “আপনি এ-সব কথা কী বলছেন। কে আপনাকে বলেছে যে, আমি তাঁকে বিবাহ করবার জন্যে তাঁর সঙ্গে বােঝাপড়া করতে গেছি!”

 হরিমােহিনী কহিলেন, “আমি কী করে জানব বাবা! কাগজে বেরিয়ে গেছে, সেই শুনেই তাে লজ্জায় মরছি।”

 গােরা বুঝিল, হারানবাবু অথবা তাঁহার দলের কেহ এই কথা লইয়া কাগজে আলােচনা করিয়াছে। গােরা মুষ্টি বদ্ধ করিয়া কহিল, “মিথ্যা কথা!”

 হরিমােহিনী তাহার গর্জন-শব্দে চমকিয়া উঠিয়া কহিলেন, “আমিও তাে তাই জানি। এখন আমার একটি অনুরােধ তােমাকে রাখতেই হবে। একবার তুমি রাধারানীর কাছে চলাে।”

 গােরা জিজ্ঞাসা করিল, “কেন?”

৫৭১