পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৮৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


 হরিমােহিনী কহিলেন, “তুমি তাকে একবার বুঝিয়ে বলবে।”

 গােরার মন এই উপলক্ষটি অবলম্বন করিয়া তখনই সুচরিতার কাছে যাইবার জন্য উদ্যত হইল। তাহার হৃদয় বলিল, ‘আজ একবার শেষ দেখা দেখিয়া আসিবে চলো। কাল তােমার প্রায়শ্চিত্ত- তাহার পর হইতে তুমি তপস্বী। আজ কেবল এই রাত্রিটুকুমাত্র সময় আছে- ইহারই মধ্যে, কেবল অতি অল্পক্ষণের জন্য। তাহাতে কোনাে অপরাধ হইবে না। যদি হয় তাে কাল সমস্ত ভস্ম হইয়া যাইবে।’

 গােরা একটু চুপ করিয়া থাকিয়া জিজ্ঞাসা করিল, “তাঁকে কী বােঝাতে হবে বলুন।”

 আর-কিছু নয়— হিন্দু আদর্শ-অনুসারে সুচরিতার মতাে বয়স্থা কন্যার অবিলম্বে বিবাহ করা কর্তব্য এবং হিন্দুসমাজে কৈলাসের মতাে সৎপাত্রলাভ সুচরিতার অবস্থার মেয়ের পক্ষে অভাবনীয় সৌভাগ্য।

 গােরার বুকের মধ্যে শেলের মতাে বিঁধিতে লাগিল। যে লােকটিকে গােরা সুচরিতার বাড়ির দ্বারের কাছে দেখিয়াছিল তাহাকে স্মরণ করিয়া গােরা বৃশ্চিকদংশনে পীড়িত হইল। সুচরিতাকে সে লাভ করিবে, এমন কথা কল্পনা করাও গােরার পক্ষে অসহ। তাহার মন বজ্রনাদে বলিয়া উঠিল, না, এ কখনােই হইতে পারে না।

 আর-কাহারও সঙ্গে সুচরিতার মিলন হওয়া অসম্ভব; বুদ্ধি ও ভাবের গভীরতায় পরিপূর্ণ সুচরিতার নিস্তব্ধ গভীর হৃদয়টি পৃথিবীতে গােরা ছাড়া দ্বিতীয় কোনাে মানুষের সামনে এমন করিয়া প্রকাশিত হয় নাই এবং আরকাহারও কাছে কোনােদিনই এমন করিয়া প্রকাশিত হইতে পারে না। সে কী আশ্চর্য! সে কী অপরূপ! রহস্যনিকেতনের অন্তরতম কক্ষে সে কোন্ অনির্বচনীর সত্তাকে দেখা গেছে! মানুষকে এমন করিয়া কয়বার দেখা যায় এবং কয়জনকে দেখা যায়! দৈবের যােগেই সুচরিতাকে যে ব্যক্তি এমন প্রগাঢ় সত্যরূপে দেখিয়াছে, নিজের সমস্ত প্রকৃতি দিয়া তাহাকে অনুভব করিয়াছে, সে তাে সুচরিতাকে পাইয়াছে। আর-কেহ আর-কখনাে তাহাকে

৫৭২