পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৯৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


 আনন্দময়ী কহিলেন, “এখন একটু ভালােই আছেন। সাহেব-ডাক্তার ডাকতে গেছে।”

 ঘরে শশিমুখী এবং একজন চাকর ছিল। কৃষ্ণদয়াল হাত নাড়িয়া তাহাদিগকে বিদায় করিয়া দিলেন।

 যখন দেখিলেন সকলে চলিয়া গেল তখন তিনি নীরবে আনন্দময়ীর মুখের দিকে চাহিলেন এবং গােরাকে মৃদুকণ্ঠে কহিলেন, “আমার সময় হয়ে এসেছে। এতদিন তােমার কাছে যা গােপন ছিল, আজ তােমাকে তা না বলে গেলে আমার মুক্তি হবে না।”

 গােরার মুখ বিবর্ণ হইয়া গেল। সে স্থির হইয়া বসিয়া রহিল। অনেক ক্ষণ কেহ কোনাে কথা কহিল না॥

 কৃষ্ণদয়াল কহিলেন, “গােরা, তখন আমি কিছু মানতুম না, সেই জন্যই এতবড়াে ভুল করেছি। তার পরে আর ভ্রমসংশােধনের পথ ছিল না।”

 এই বলিয়া আবার চুপ করিলেন। গােরাও কোনাে প্রশ্ন না করিয়া নিশ্চল হইয়া বসিয়া রহিল।

 কৃষ্ণদয়াল কহিলেন, “মনে করেছিলুম, কোনােদিনই তােমাকে বলবার আবশ্যক হবে না, যেমন চলছে এমনিই চলে যাবে। কিন্তু এখন দেখছি, সে হবার জো নেই; আমার মৃত্যুর পরে তুমি আমার শ্রাদ্ধ করবে কী করে!”

 এরূপ প্রমাদের সম্ভাবনা মাত্রে কৃষ্ণদয়াল যেন শিহরিয়া উঠিলেন। আসল কথাটি কী তাহা জানিবার জন্য গােরা অধীর হইয়া উঠিল। সে আনন্দময়ীর দিকে চাহিয়া কহিল, “মা, তুমি বলাে, কথাটা কী। শ্রাদ্ধ করবার অধিকার আমার নেই?”

 আনন্দময়ী এতক্ষণ মুখ নত করিয়া স্তব্ধ হইয়া বসিয়া ছিলেন। গােরার প্রশ্ন শুনিয়া তিনি মাথা তুলিলেন, এবং গােরার মুখের উপর দৃষ্টি স্থির রাখিয়া কহিলেন, “না, বাবা, নেই।”

 গােরা চকিত হইয়া উঠিয়া কহিল, “আমি ওঁর পুত্র নই?”

 আনন্দময়ী কহিলেন, “না।”

৫৮৩