পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৬৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


পাতাবাহার এবং ফুলের গাছ। বারান্দার উপর হইতে রাস্তার ধারের শিরীষ ও কৃষ্ণচূড়া গাছের বর্ষাজলধৌত পল্লবিত চিক্কণতা দেখা যাইতেছে।

 সূর্য তখনো অস্ত যায় নাই; পশ্চিম আকাশ হইতে ম্লান রৌদ্র সােজা হইয়া বারান্দার এক প্রান্তে আসিয়া পড়িয়াছে।

 ছাতে তখন কেহ ছিল না। একটু পরেই সতীশ সাদা-কালো-রোঁয়াওয়ালা এক ছোটো কুকুর লইয়া আসিয়া উপস্থিত হইল। তাহার নাম খুদে। এই কুকুরের যতরকম বিদ্যা ছিল সতীশ তাহা বিনয়কে দেখাইয়া দিল। সে এক পা তুলিয়া সেলাম করিল, মাথা মাটিতে ঠেকাইয়া প্রণাম করিল, একখণ্ড বিস্কুট দেখাইতেই লেজের উপর বসিয়া দুই পা জড়াে করিয়া ভিক্ষা চাহিল। এইরূপে খুদে যে খ্যাতি অর্জন করিল সতীশই তাহা আত্মসাৎ করিয়া গর্ব অনুভব করিল— এই যশােলাভে খুদের লেশমাত্র উৎসাহ ছিল না; বস্তুত যশের চেয়ে বিস্কুটটাকে সে ঢের বেশি সত্য বলিয়া গণ্য করিয়াছিল।

 কোনাে একটা ঘর হইতে মাঝে মাঝে মেয়েদের গলার খিল্‌খিল্ হাসি ও কৌতুকের কণ্ঠস্বর এবং তাহার সঙ্গে একজন পুরুষের গলাও শুনা যাইতেছিল। এই অপর্যাপ্ত হাস্যকৌতুকের শব্দে বিনয়ের মনের মধ্যে একটা অপূর্ব মিষ্টতার সঙ্গে সঙ্গে একটা যেন ঈর্ষার বেদনা বহন করিয়া আনিল । ঘরের ভিতরে মেয়েদের গলার এই আনন্দের কলধ্বনি বয়স হওয়া অবধি সে এমন করিয়া কখনাে শুনে নাই ; এই আনন্দের মাধুর্য তাহার এত কাছে উচ্ছ্বসিত হইতেছে, অথচ সে ইহা হইতে এত দূরে! সতীশ তাহার কানের কাছে কী বকিতেছিল বিনয় তাহা মন দিয়া শুনিতেই পারিল না।

 পরেশবাবুর স্ত্রী তাঁহার তিন মেয়েকে সঙ্গে করিয়া ছাতে আসিলেন; সঙ্গে একজন যুবক আসিল, সে তাঁহাদের দুর আত্মীয়।

 পরেশবাবুর স্ত্রীর নাম বরদাসুন্দরী। তাঁহার বয়স অল্প নহে কিন্তু দেখিলেই বােঝা যায় যে, বিশেষ যত্ন করিয়া সাজ করিয়া আসিয়াছেন। বড়ােবয়স পর্যন্ত পাড়াগেঁয়ে মেয়ের মতাে কাটাইয়া হঠাৎ এক সময় হইতে

৫৬